সাংবাদিক কাজলের মুক্তির দাবি করেছে ‘৯০-এর মহান গণঅভ্যুত্থানের সাবেক ছাত্রনেতৃবৃন্দ

প্রকাশিত: ৫:১৬ অপরাহ্ণ, মে ৬, ২০২০

ঢাকা, ০৬ মে ২০২০ : ‘৯০-এর মহান গণঅভ্যুত্থানের সংগঠক ও সাবেক ছাত্রনেতারা আজ ৬ মে ২০২০ তারিখে সংবাদপত্রে দেওয়া এক যুক্ত বিবৃতিতে যশোর কারাগারে থাকা ‘৯০-এর গণঅভ্যুত্থানের সাহসী কর্মী, সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ১০ মার্চ অপহরণের ৫৩ দিন পর বেনাপোল সীমান্ত থেকে কাজলকে উদ্ধার করা হয় এবং পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে পাসপোর্ট ছাড়া বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অভিযোগে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে আরও তিনটি মামলা আছে বলে ৫৪ ধারায় যে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে এবং একই সাথে তাঁকে পিছমোড়া করে হাতকড়া পরানো খুবই উদ্বেগের বিষয় এবং মানবাধিকার পরিপন্থী।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, শফিকুল ইসলাম কাজল একজন সৎ ও সাহসী সাংবাদিক। ‘৯০-এর মহান গণঅভ্যুত্থান, শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে করা গণআদালত-এ তিনি সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। এ ছাড়া ওয়ান ইলেভেনের সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর দুর্লভ সব ছবি ক্যামেরাবন্দি করেন।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, শফিকুল ইসলাম কাজলের উদ্ধার ও মুক্তি চেয়ে অপহরণের শুরু থেকেই দেশের প্রগতিশীল রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক নেতা-কর্মী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ সোচ্চার থেকেছে।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, শফিকুল ইসলাম কাজলকে জীবিত উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর যারা ভূমিকা রেখেছেন তারা অবশ্যই প্রশংসনীয় কাজ করেছেন। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কোনো একটা স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে আরও নতুন মামলা দিয়ে তার মুক্তি প্রলম্বিত করা হলে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিসমূহই প্রাকারন্তরে লাভবান হবে। সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে হয়রানি না করে দ্রুত মুক্তি দিয়ে সরকার ও রাষ্ট্র দায়িত্বশীল আচারণ করবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি।
বিবৃতি দাতারা হচ্ছেন ১. নাজমুল হক প্রধান, ২. নুর আহমেদ বকুল, ৩. শফি আহমেদ, ৪. সিরাজুমমুনীর, ৫. বজলুর রশিদ ফিরোজ, ৬. রুহিন হোসেন প্রিন্স, ৭. মোশরেফা মিশু, ৮. ফয়জুল হাকিম লালা, ৯. সুজাউদ্দিন জাফর, ১০. আমিরুল হক আমিন, ১১. জায়েদ ইকবাল খান, ১২. এম, এ আওয়াল, ১৩. শেখ মোস্তফা ফারুক, ১৪. আখতার সোবহান খান মাসরুর ও ১৫. সৈয়দ অামিরুজ্জামান প্রমুখ।