করোনা চিকিৎসায় ‘নেগেটিভ প্রেশার আইসোলেশন’ ক্যানোপি উদ্ভাবন

প্রকাশিত: ৩:২০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০

করোনা চিকিৎসায় ‘নেগেটিভ প্রেশার আইসোলেশন’ ক্যানোপি উদ্ভাবন

ঢাকা, ১২ জুলাই ২০২০: কভিড-১৯-এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের গবেষক মিলে ‘নেগেটিভ প্রেশার আইসোলেশন’ ক্যানোপি উদ্ভাবন করেছে।

এই ক্যানোপির উদ্ভাবন, উন্নয়ন ও আইসিইউতে ব্যবহার বিষয়ে জানাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. মিল্টন হলে শুক্রবার একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনটি যৌথভাবে আয়োজন করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যানেসথেসিয়া, অ্যানালজেশিয়া অ্যান্ড ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন বিভাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগ।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গবেষক দলটি সম্পূর্ণ নিজস্ব নকশায় ‘নেগেটিভ প্রেশার আইসোলেশন ক্যানোপি’ তৈরি করেছে। এটি শুধু একটি বিছানার উপরে একজন রোগীকে আলাদা করে রাখবে। এই ক্যানোপির চারদিকের পর্দা স্বচ্ছ ও উঁচু হওয়ায় কোনো রোগী অস্বস্তিবোধ করবে না। এই ক্যানোপি ডিজাইনে হেপা ফিল্টারের সঙ্গে বাড়তি আছে আল্ট্রাভায়োলেট আলোর প্রযুক্তি যার মাধ্যমে প্রথমেই সব জীবাণু ও ভাইরাস ধ্বংস করে ফেলা হয়। এই ক্যানোপি কভিড-১৯-এ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা প্রদানকারী সম্মুখযোদ্ধাদের নিরাপত্তা বিধানে সহায়ক হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া দেশ ও বিশ্বের বর্তমান পরিস্থিতে দেশেই এ ধরনের একটি প্রযুক্তির উদ্ভাবনের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারপার্সন ও বর্তমানে অনারারি অধ্যাপক খোন্দকার সিদ্দিক-ই রব্বানীসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত গবেষক দলকে ধন্যবাদ জানান। তিনি এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনে যোগ দেন। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. জাহিদ হোসেন, অ্যানেসথেসিয়া, অ্যানালজেশিয়া অ্যান্ড ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. একেএম আখতারুজ্জামান, ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. সায়েদুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল ফিজিক্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল কাদির প্রমুখ।