সুনামগঞ্জে তৃতীয় দফা বন্যায় দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

প্রকাশিত: ১:১৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০

সুনামগঞ্জে তৃতীয় দফা বন্যায় দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

॥ হাবিবুর রহমান তালুকদার || সুনামগঞ্জ, ২৩ জুলাই ২০২০ : টানা বৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জে আবারও বন্যা দেখা দিয়েছে। তৃতীয় দফা বন্যায় দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। নদ-নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করায় পানিতে ডুবে গেছে ফসল। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। ডুবে গেছে বাড়িঘর, রাস্তাঘাট। ইতোমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলার প্রায় সবকটি উপজেলার সাথে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। সুনামগঞ্জের ১১টি উপজেলায় ও ৪টি পৌরসভায় ২৯৫টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে।
সিনিয়র আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী জানান, সুনামগঞ্জ অঞ্চলে আরো মাসখানেক বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে, আগামী দু’তিন দিন বৃষ্টিপাত বেশী হবে বলেও জানান তিনি। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে নদীর পানি বাড়বে। সেই সাথে উজানের ঢলও আসতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি।
চাহিদা দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।
পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে তৃতীয় দফা বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে সুনামগঞ্জ। মঙ্গলবার বিকেল ৩ টা থেকে সুরমা নদীর পানি সুনামগঞ্জ ষোলঘর পয়েন্টে ৮ দশমিক ১২ সেন্টিমিটার রেকর্ড করা হয়েছে। যা বিপদ সীমার ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার সকাল ৯ টায় সুনামগঞ্জে ১২০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। সকাল ৯টায় সুনামগঞ্জে সুরমা নদীতে পানি বিপদ সীমার৩০সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছেএবং বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় ১২০ মিলিমিটার। ছাতকে পানি সুরমা নদীতে ১৬৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে এবং বৃষ্টিপাত ১৬৪ মিলিমিটারি। তাহিরপুরে যাদু কাটা নদীতে ৬৮ সেন্টিমিটার এবং বৃষ্টিপাত ২০৬ মিলিমিটার এবং দিরাইয়ে সুরমা নদীতে ২৮ সেন্টমিটার, বৃষ্টিপাত ৯৩ মিলিমিটার। গত ২৪ ঘন্টায় সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ১৫ মে পর্যন্ত হাওরের ফসল রক্ষার জন্য সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমা ছিল ৬ দশমিক ৫০ সেন্টিমিটার এবং ১৫ মে-এর পরে বিপদসীমা হল ৭ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার। ৭ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার অতিক্রম করলেই বর্ষাকালে সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমা ধরা হয়। এর আগে ১৫ জুলাই সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডে অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে বন্যার সতর্কতা দিয়ে জানানো হয়, সুনামগঞ্জ জেলার প্রধান নদীসমূহের পানি বর্তমানে হ্রাস পাচ্ছে। পানি হ্রাস পাওয়ার এ প্রবণতা ১৯ জুলাই পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে এবং এ সময় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি অব্যাহত থাকতে পারে।
বৃষ্টিপাত পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে পানি বৃদ্ধির এ প্রবণতা ৪/৫ দিন স্থায়ী হতে পারে। এর ধারাবাহিকতায় জেলার সুরমা, কুশিয়ারা, যাদুকাটা নদীর পানি সমতল কোথাও কোথাও বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে। এর ফলে সুনামগঞ্জ জেলার নিম্নাঞ্চলের কোথাও কোথাও আবারও বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এবং কোথাও কোথাও নতুন করে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।
জেলা ত্রাণ ও পুর্ণবাসন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, জেলার ১১টি উপজেলায় ও ৪টি পৌরসভায় ২৯৫টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে। এ পর্যন্ত ৮২টি ইউনিয়নের লক্ষাধিক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
প্রসঙ্গত, প্রথম দফা ২৬ জুন উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা বৃষ্টিপাতের ফলে সুনামগঞ্জে বন্যা দেখা দেয়। এ সময় সুনামগঞ্জ শহরসহ জেলার ৮১টি ইউনিয়নের ৫০ হাজারেরও বেশি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরবর্তীতে ২৯ জুন থেকে সুরমা নদীর পানি কমতে শুরু করে। প্রথম দফা বন্যার পানি কমতে না কমতেই ১০ জুলাই দ্বিতীয় দফা আবার বন্যা দেখা দেয়। এতে জেলার ৮২ টি ইউনিয়নের দুই শতাধিক গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন।
ছাতক, ছাতকে উপর্যুপরি ৩য়বারের মতো বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে পুরো উপজেলার জনজীবন। সড়কে পানি উঠায় সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ সারাদেশের সাথে ছাতক শহরের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।
ছোট-বড় সবকটি রাস্তা ডুবে যাওয়ায় আবারো পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন উপজেলার প্রায় দেড় লাখ মানুষ। ছাতকে সুরমা নদীর পানি বিপদ সীমার ১৬৭ সেমি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া, উপজেলার পিয়াইন, চেলা, বটের খাল, বোকা, ডাউকি নদীসহ সবকটি নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ইসলামপুর, নোয়ারাই, কালারুকা, ছৈলা-আফজলাবাদ, দোলারবাজার, জাউয়া, উত্তর খুরমা, চরমহল্লা, দক্ষিণ খুরমা, সিংচাপইড়, ভাতগাঁওসহ উপজেলার সবকটি ইউনিয়ন ও পৌরসভা বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। ছাতক শহরসহ উপজেলার অনেক হাট বাজার ও ঘর বাড়িতে পানি উঠে গেছে।
ইউএনও মো. গোলাম কবির জানান, বন্যার্তদের জন্য বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রস্তুত রাখা হয়েছে। কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।
দোয়ারাবাজার : , গত তিনদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারে আবারও পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন শতাধিক গ্রামের লাখো মানুষ। উপর্যুপরি দু’দফা বন্যার পানি এখনও পুরোদমে নামেনি বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট থেকে। তবুও থামেনি প্রাকৃতিক দুর্যোগের আগ্রাসী থাবা। ফলে তৃতীয় দফা বন্যায় নদীনালা, খালবিল, হাওর-বাওর, মাঠঘাট, জল স্থল আবারও একাকার হয়ে পড়ায় গবাদি পশুসহ সর্বক্ষেত্রেই বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বানভাসি মানুষ। অধিকাংশ টিউবওয়েল পানিতে নিমজ্জিত হওয়াসহ স্যানিটেশন ব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় পেটের পীড়া ও চর্মরোগসহ পানিবাহিত বিভিন্ন রোগের উপসর্গ দেখা দিয়েছে বন্যা উপদ্রুত এলাকায়। এদিকে, দু’দফা বন্যার পানি ধীরগতিতে ক্রমশ কমতে শুরুর ভেতর দিয়েই তৃতীয় দফা বন্যার করাল গ্রাসে সবক’টি সড়ক আবারও তলিয়ে যাওয়ায় উপজেলা সদরের সাথে সকল ইউনিয়নের সড়ক যোগাযোগ একেবারেই বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এছাড়া উঠতি আউশ, আমনের বীজতলা, সবজি ক্ষেত ও মাছের খামারগুলো প্রথম দফা বন্যায় ভেসে যাওয়ায় কোটি কোটি টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হন হাজার হাজার পরিবার। তবুও ক্ষান্ত হননি কৃষিজীবী ও মৎস্যজীবী পরিবারগুলো। বুকে সাহস আর নিরন্তর আশা নিয়ে ভেসে যাওয়া পুকুরগুলোতে আবারও মাছের পোণা ছাড়াসহ তড়িঘড়ি করে বীজতলায় আবারও বীজ বুনেছিলেন। কিন্তু বিধি বাম ! দু’দফা বন্যার রেশ না কাটতেই তৃতীয় দফা বন্যা ও ঢলের তোড়ে আবারও সবকিছু ভেস্তে যাওয়ায় এখন চোখে সর্ষেফুল দেখছেন তারা। এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত ভারি বর্ষণ অব্যাহত থাকায় সুরমাসহ উপজেলার সকল নদীর পানি বিপদসীমার তিনফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে নিম্নাঞ্চলসহ উপজেলার শত শত বাড়িঘরে হাঁটু ও কোমর সমান পানি বিদ্যমান। পরপর তিন দফা ঢলের তোড়ে শতাধিক কাঁচা ঘরদরজা ধসে গিয়ে পানিতে ভেসে গেছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোনিয়া সুলতানা বলেন, বন্যা মোকাবেলায় সার্বক্ষণিক মনিটরিংসহ কন্ট্রোলরুম খোলা রয়েছে। উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শন ছাড়াও পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেটসহ বানভাসিদের মাঝে শুকনো খাবার প্যাকসহ বিভিন্ন ত্রাণসামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। দু’দফা বন্যার রেশ কেটে উঠার আগেই সপ্তাহকালের ব্যবধানে ফের তৃতীয় দফা বন্যা শুরু হয়। এবারের বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে। তবে বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বন্যা পরবর্তী পুনর্বাসনে আমাদের সকল তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ