নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে অনলাইন পেমেন্ট কর ও শুল্ক অবকাঠামো উপযোগী করতে হবে

প্রকাশিত: ৭:১৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০২০

নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে অনলাইন পেমেন্ট কর ও শুল্ক অবকাঠামো উপযোগী করতে হবে

ঢাকা, ২৪ অক্টোবর ২০২০: স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেছেন, ই-কমার্সে নারী উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হলে অনলাইন পেমেন্ট, কর ও শুল্ক অবকাঠামো এর উপযোগী করতে হবে।

স্পিকার আজ উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরামের উদ্যোগে ‘উইমেন ই-কমার্স এন্টারপ্রিনিউরশিপ সামিট (উই সামিট) ২০২০’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, নারী উদ্যোক্তাদের ই- কমার্স থেকে সুফল প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে প্রযুক্তিভিত্তিক মডেলগুলোকে উন্নত করে এই সেক্টরকে আরো সমৃদ্ধ করতে হবে। নারী উদ্যোক্তাদের অনেক জটিল ও প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে ব্যবসা পরিচালনা করতে হয়, যা কাম্য নয়।
উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরাম এসব সমস্যা উদ্ভাবনী উপায়ে সমাধানে ভূমিকা রাখবে বলে স্পিকার আশাবাদ ব্যক্ত করেন
স্পিকার বলেন, নারী উদ্যোক্তাদের এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে সামাজিক প্রতিবন্ধকতা, অপর্যাপ্ত মূলধন, লিঙ্গ বৈষম্য, জ্ঞান ও পরিচালন দক্ষতার অভাব, প্রশিক্ষণ ও প্রযুক্তি সহায়তার অভাব, তথ্য প্রাপ্তি ও আর্থিক সুযোগ-সুবিধায় সীমিত প্রবেশাধিকার সমস্যা রয়েছে। ঋণপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে অনেক বাধা-বিপত্তির সম্মুখীন হওয়ার কারণে অধিকাংশ ক্ষেত্রে নারীদের নিজস্ব সামান্য সঞ্চয় থেকে বিনিয়োগ করতে হয়। কিন্তু, নারীরা এসব চ্যালেঞ্জকে সম্ভাবনায় পরিণত করে অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে নিজেদের প্রচেষ্টায় নারী উদ্যোক্তা হিসেবে যথাযোগ্য স্থান করে নিচ্ছে। নারী উদ্যোক্তারা হাল ছাড়বে না, তারা তাদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখবে।
ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ নারী উদ্যোক্তাদের জন্য কিছু গুরুতর চ্যালেঞ্জ নিয়ে এসেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে শিক্ষার্থীরা বাসায় অবস্থান করায় নারীদের পারিবারিক দায়িত্ব বেড়ে গেছে। অনলাইন শিক্ষা পদ্ধতিতে মা হিসেবে নারীদের সহায়তা করতে হচ্ছে। নারী উদ্যোক্তাদের পূর্বে নিযুক্ত করা কর্মচারীদের বেতন ও গৃহীত ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে হচ্ছে। এসব সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য তাদের প্রাতিষ্ঠানিক সহায়তা, ব্যাংকিং সহায়তা, সুদমুক্ত ঋণ সহায়তা, বাংলাদেশ ব্যাংক গৃহীত বিনাসুদে পঞ্চাশ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ সহায়তা, যথাযথ আইন ও নীতি প্রণয়ন, প্রধানমন্ত্রীর বাস্তবায়িত ১শ’টি অর্থনৈতিক জোনে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ প্লট বরাদ্দ প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে।
স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ও প্রজ্ঞার মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশে বাস্তবায়ন করে চলেছেন, যা নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ব্যাপক সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিয়েছে। ইউনিয়ন পর্যায়ে নেটওয়ার্ক ও কানেকটিভিটি উন্নত হওয়ার কারণে প্রত্যন্ত অঞ্চলের নারী উদ্যোক্তারা এর সুফল পাচ্ছেন।
তিনি বলেন, বর্তমান যুগে অনলাইন ও ই-কমার্সের সুবাদে দেশের সীমা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ক্রেতাদের আকর্ষণ করার সুযোগ পাচ্ছে নারী উদ্যোক্তাগন। এসময় নারী উদ্যোক্তাদের আইসিটি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরো দক্ষ ও জ্ঞানী করে তোলার জন্য তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের প্রতি ব্যাপকভাবে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান স্পিকার। চলমান অর্থনীতিকে আরো শক্তিশালী করতে সরকার সব সময় নারী উদ্যোক্তাদের পাশে রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন ।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে ও উই-এর সহকারী প্রজেক্ট ম্যানেজার ফারজানা তানির সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসাবে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম ও বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বক্তব্য রাখেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে এসবিকে ফাউন্ডেশন ও এসবিকে টেক ভেঞ্চার্সের প্রতিষ্ঠাতা সোনিয়া বশির কবির ও আহ্বায়ক হিসেবে উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরামের সভাপতি নাসিমা আক্তার নিশা বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে উই সামিটের সাথে সম্পৃক্ত সদস্যবৃন্দ ভার্চুয়ালি সংযুক্ত ছিলেন।