সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ১৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী অাজ

প্রকাশিত: ৮:২১ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ২৭, ২০২১

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ১৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী অাজ

সৈয়দা তাহমিনা বেগম, বিশেষ প্রতিনিধি || হবিগঞ্জ, ২৭ জানুয়ারি ২০২১ : সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ নেতা শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ১৬তম শাহাদাৎ বার্ষিকী অাজ।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বৈদ্যের বাজারে আওয়ামী লীগের ঈদ-পরবর্তী জনসভা শেষে বের হওয়ার পথে গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হন তিনি। চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়ার পথে মারা যান। ওই হামলায় তাঁর ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা, আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা আবদুর রহিম, আবুল হোসেন ও সিদ্দিক আলী নিহত হন। আহত হন ৭০ জন।

ঘটনার পরদিন আবদুল মজিদ খান বাদী হয়ে হত্যা ও বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দুটি মামলা করেন। পরে মামলা দুটি সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়। তদন্ত শেষে ২০০৫ সালে ১৮ মার্চ শহীদ জিয়া স্মৃতি ও গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতিসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে একটি অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। এই অভিযোগপত্রের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন করেন বাদী মজিদ খান। পরে ২০০৭ সালে মামলাটি পুনঃ তদন্তের জন্য ফের সিআইডিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

মামলার পঞ্চম তদন্তকারী কর্মকর্তা সিলেট অঞ্চলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মেহেরুন্নেসা পারুল সর্বশেষ ২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর হবিগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এতে নতুন করে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, বিএনপির নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম কিবরিয়া, মাওলানা তাজউদ্দিনের ভগ্নিপতি হাফেজ মো. ইয়াহিয়াসহ আবু বকর, দেলোয়ার হোসেন, শেখ ফরিদ, আবদুল জলিল ও মাওলানা শেখ আবদুস সালামকে আসামি করা হয়। তাঁদের বিরুদ্ধে বোমা হামলা ও হত্যার অভিযোগ আনা হয়।

এর আগে ২০০৫ সালের ১৮ মার্চ প্রথম দফায় ১০ জনের বিরুদ্ধে ও দ্বিতীয় দফায় ২০১১ সালের ২০ জুন আসামির সংখ্যা ১৬ জন বাড়িয়ে ২৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। তাঁদের মধ্যে দুজন ভারতে মারা যান। আর তৃতীয় দফায় আসামির সংখ্যা আরও নয়জন বাড়িয়ে এ মামলায় মোট আসামি করা হয় ৩৫ জনকে।

দিবসটি উপলক্ষে শাহ এ এম এস কিবরিয়া স্মৃতি ফাউন্ডেশন আজ সকালে বৈদ্যের বাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৫৪ সালে তৎকালীন পাকিস্তানের বৈদেশিক বিভাগে যোগদান করে কিবরিয়া পররাষ্ট্রবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক বিষয়ক বিভাগের মহাপরিচালক হয়েছিলেন। ১৯৮১-১৯৯২ সালের মধ্যেকার সময়ে তিনি জাতিসংঘের এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক কমিশন (এসকাপ)-এর প্রধান নির্বাহী ছিলেন। এছাড়াও, অর্থমন্ত্রী হিসেবে কিবরিয়া ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন। ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে এম.পি বা সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

শাহ এ এম এস কিবরিয়া ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি তার নির্বাচনী এলাকা হবিগঞ্জে গ্রেনেড হামলায় মর্মান্তিকভাবে নিহত হন।

এস এ এম এস কিবরিয়া ১৯৩১ সালের ১ মে বর্তমান হবিগঞ্জ জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা শাহ ইমতিয়াজ আলী শিক্ষাবিদ ছিলেন। ১৯৫২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। ঐ বৎসরেই বাংলা ভাষা আন্দোলনে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তান পুলিশ কর্তৃক তিনি গ্রেফতার হন এবং অল্পকিছুদিন পরেই মুক্তি পান। ১৯৫৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জনের পর পাকিস্তান সরকারের সেন্ট্রাল সুপিরিয়র সার্ভিস পরীক্ষায় কৃতকার্য হয়ে পাকিস্তানে বৈদেশিক বিভাগে যোগদান করেন। কিবরিয়া আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনে ফ্লেচার স্কুল অব ল এবং যুক্তরাজ্যের লণ্ডনে ব্রিটিশ ফরেন অফিসে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন।

কূটনৈতিক জীবন
শাহ এ এম এস কিবরিয়া পাকিস্তানের কূটনৈতিক মিশনের সদস্য হিসেবে কলকাতা, কায়রো, জাতিসংঘ মিশন, নিউইয়র্ক, তেহরান এবং জাকার্তায় নিয়োজিত ছিলেন। এছাড়াও তিনি ইসলামাবাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এবং ওয়াশিংটন ডি.সি.-তে পাকিস্তান দূতাবাসে নিযুক্ত ছিলেন। বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে শাহ কিবরিয়া ওয়াশিংটন ডি.সি.-তে অবস্থিত পাকিস্তান দূতাবাসে রাজনৈতিক পরামর্শদাতা হিসেবে চাকুরীরত ছিলেন। পাক দূতাবাসে কর্মরত অবস্থায় ৪ আগস্ট, ১৯৭১ তারিখে তিনি ও তার বাঙ্গালী সহকর্মীবৃন্দ দূতাবাস ত্যাগ করে বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকারের প্রতি আনুগত্য দেখান। পরে তিনি ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ মিশন তদারকী করাসহ বাংলাদেশের পক্ষে জনমত গঠনে প্রভূত সহায়তা করেন।

স্বাধীনতা যুদ্ধের পর শাহ এ এম এস কিবরিয়া ঢাকায় নবপ্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন রাজনৈতিক বিষয়ক বিভাগের মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। এছাড়াও, তিনি সচিব হিসেবে প্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৩ সালের জানুয়ারি মাসে বাংলাদেশ সরকার তাকে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড এবং ফিজিতে হাইকমিশনার হিসেবে নিযুক্ত করে। ১৯৭৬ সালে তিনি জেনেভায় জাতিসংঘের ইউরোপীয় কার্যালয়ের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে নিযুক্ত হন। ১৯৭৮ সালে বৈদেশিক সচিব হিসেবে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। ১৯৭৯ সালে ৭৭-জাতি গ্রুপের প্রস্তুতি কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে ম্যানিলায় আংকটাডের সভায় নির্বাচিত হন তিনি। মে ১৯৮১ থেকে মার্চ ১৯৯২ পর্যন্ত সময়কালে কিবরিয়া এসকাপের নির্বাহী সচিবের পদে অধিষ্ঠিত হন। এছাড়াও, ১৯৮৬ সালে তিনি জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রতিনিধি হিসেবে কম্বোডিয়ায় ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে জড়িত ছিলেন।

রাজনৈতিক জীবন
জাতিসংঘের কার্যাবলী সম্পন্ন করে কিবরিয়া ১৯৯২ সালে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। দেশের সেবা করার লক্ষ্যে রাজনীতিতে আগ্রহী হয়ে ঐ বছরের সেপ্টেম্বর মাসে তিনি আওয়ামী লীগে উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য হিসেবে যোগদান করেন। একই সময়ে কিবরিয়া জাতীয় দৈনিকগুলোতে অর্থনীতি এবং রাজনৈতিক ইস্যু সম্পর্কীয় নিবন্ধ লিখতে শুরু করেন। ১৯৯৪ সালে তিনি আওয়ামী লীগ সভাপতির “রাজনৈতিক উপদেষ্টা” পদে নিযুক্ত হন। ১৯৯৬ সালের ১২ জুনে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনের পর তিনি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মন্ত্রী পরিষদে অর্থমন্ত্রী হিসেবে যোগদান করেন। ২০০১ সালের জুলাই মাস পর্যন্ত ঐ সরকারের মেয়াদকালীন সময়ে একই পদে অধিষ্ঠিত থাকেন।

১৯৯৭ সালের বার্ষিক সভায় কিবরিয়া এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অর্থনৈতিক ও সামাজিক কমিশনের (এসকাপ) চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এছাড়াও ১৯৮৮ সালে আন্তর্জাতিক কৃষি উন্নয়ন তহবিলের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি হিসেবে অধিষ্ঠিত ছিলেন তিনি। ২০০১ সালের ১ অক্টোবরে অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে শাহ এ এম এস কিবরিয়া হবিগঞ্জ-৩ নির্বাচনী এলাকা থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।

অর্থমন্ত্রীর মেয়াদকালে
বিশ্লেষকেরা শাহ এ এম এস কিবরিয়ার ৫ বছরের সময়কালকে অর্থনৈতিক উন্নতি ও স্থিরতার প্রতিকৃতি হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। ১৯৯৬ সালের পুঁজি বাজার ধ্বসই ছিল শুধুমাত্র এর ব্যতিক্রম ঘটনা।[৬] ১৯৯৬ থেকে ২০০১ এর সময়কালে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো জিডিপি’র গড় ৫.৮৩%-এ উন্নীত হয়। মুদ্রাস্ফীতির গড় হার ৫%-এর নিচে নেমে যায়। জুন ২০০১ সালে মুদ্রাস্ফীতির গড় হার ছিল ১.৫৩%। ১৯৯৫-১৯৯৬ অর্থবছরের ৩,৮৮৪ মিলিয়ন ডলারের স্থলে ২০০০-২০০১ অর্থবছরে ৬,৪৭৭ মিলিয়ন ডলারের পণ্যসামগ্রী বিদেশে রপ্তানী করা হয়। সামাজিক অবকাঠামো হিসেবে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ইত্যাদি খাতে ২০০০-২০০১ অর্থবছরে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেয়ে ২৪.৭% হয়, যেখানে ১৯৯৫-১৯৯৬ অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ২১.০২%। ৫ বছর মেয়াদে আওয়ামী লীগের আমলে জাতীয় সঞ্চয়ের হার ২০.১৭% থেকে ২৩.৭৮% হয়। একইভাবে বিনিয়োগের হার ১৯.৯৯% থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২৩.৬৩% হয়। বাহ্যিক অর্থনৈতিক অবকাঠামো আরো উন্নত এবং আধুনিকায়ণ হয়। বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিমাণ ২,১০৫ মেগাওয়াট থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৩,৬০০ মেগাওয়াটে রূপান্তরিত হয়। চাউল এবং আটা উৎপাদন যেখানে ১৯৯৫-৯৬ অর্থবছরে ছিল ১৯০.৬ মিলিয়ন মেট্রিক টন; সেখানে ২০০০-২০০১ অর্থবছরে উৎপাদন দাঁড়ায় ২৬৪.৯১ মিলিয়ন মেট্রিক টন। এ উৎপাদনের ফলেই বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরবর্তীকালে প্রথমবারের মতো খাদ্যে স্বয়ং-সম্পূর্ণতা অর্জনে সক্ষম হয়।

বাংলাদেশীদের গড় আয়ু ৫৮.৭ বছর থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ২০০০-২০০১ অর্থবছরে ৬১.৮ বছরে পৌঁছে। অর্থমন্ত্রী থাকাবস্থায় শাহ কিবরিয়া’র আমলে গ্রামীণ এলাকায় মাথাপিছু খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ ২,২০৬.১ কিলোক্যালরী থেকে ২,২৭৪.২ কিলোক্যালরী এবং শহরাঞ্চলে ২,২২০.২ কিলোক্যালরী থেকে ২,২৮৩.২ কিলোক্যালরী হয়। স্বাক্ষরতার হার যেখানে ১৫ বছর বয়সীদের ঊর্ধ্বে ছিল ৪৭.৩ শতাংশ; সেখানে ২০০০ সালে ৬৪ শতাংশে দাঁড়ায়। শিশু মৃত্যুর হার যেখানে ১৯৯৫-৯৬ সালে ছিল প্রতি হাজারে ৬৭ জন, সেখানে ১৯৯৮ সালে তা ৫৭ জনে নেমে আসে।

হত্যাকাণ্ড

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি বিকেলে শাহ এ এম এস কিবরিয়া হবিগঞ্জের বৈদ্যের বাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক রাজনৈতিক জনসভায় উপস্থিত ছিলেন। তিনি বক্তৃতা শেষ করে স্কুল গেট দিয়ে বের হয়ে আসার সময় তাকে লক্ষ করে দ্রুত দুটি আর্জেস গ্রেনেড নিক্ষেপ করা হয়। তিনি ও তার ভাইপোসহ তিন সহযোগী ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন। কিবরিয়াকে প্রথমে হবিগঞ্জ এবং মাধবপুরে নিয়ে যাওয়া হয়, কিন্তু ডাক্তারের অনুপস্থিতি এবং চিকিৎসা সামগ্রীর অপ্রতুলতার জন্য তার কোনো চিকিৎসা করা যায়নি। পরবর্তীকালে তাকে ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৬৫ মাইল দূরবর্তী ঢাকার বারডেম হাসপাতালে নেয়া হয়। এ্যাম্বুলেন্স সহযোগে বারডেম হাসপাতালে শাহ কিবরিয়াকে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

শাহ কিবরিয়ার হত্যাকাণ্ডে হবিগঞ্জের নিরাপত্তা বাহিনী, সরকারি কর্মকর্তাসহ চিকিৎসকদের ভূমিকার ব্যাপক সমালোচনা হয়। কিবরিয়ার দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এ নারকীয় হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে সরকার-বিরোধী আন্দোলন ও দেশব্যাপী হরতালের ডাক দেয়। কিবরিয়া’র পরিবার ঢাকায় এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ব্যক্তিদের দ্রুত বিচারের দাবীতে সন্ত্রাসবিরোধী আন্দোলন করে।

২০০৫ সালের ২১ মার্চ বাংলাদেশ পুলিশ হবিগঞ্জে বোমা হামলার অভিযোগে ১০ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট দাখিল করে। এছাড়াও সিআইডি কর্তৃপক্ষ কিবরিয়া হত্যাকাণ্ডে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, মুফতি হান্নানসহ ১৪জনকে অন্তর্ভুক্ত করে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করে।

লিখিত বই-পুস্তকাদি

শাহ কিবরিয়া নিয়মিতভাবে জাতীয় দৈনিকগুলোতে অর্থনীতি এবং রাজনীতি বিষয়ক নিবন্ধ রচনা করে গেছেন। এছাড়াও তিনি সাপ্তাহিক মৃদুভাষণ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা এবং সম্পাদক ছিলেন। কিবরিয়া ৪টি বই রচনা করছেন।

ব্যক্তিগত জীবন

মৃদুভাষী ব্যক্তিসত্তার অধিকারী, পরিশীলিত ও মার্জিত ভদ্রলোক হিসেবে সামাজিকভাবে ভীষণ জনপ্রিয় ছিলেন শাহ এ এম এস কিবরিয়া। বাংলাদেশের রাজনীতিতে তার সততা, বিনয়, শিষ্টতা ও নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গীতে সম্মানিত রাজনীতিবিদ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন। কিবরিয়া’র পুত্র ড. রেজা কিবরিয়া একজন স্বনামখ্যাত অর্থনীতিবিদ এবং কন্যা ড. নাজলী কিবরিয়া বস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত। তার সহধর্মিনী আসমা কিবরিয়া ব্যক্তিগত জীবনে একজন চিত্রকর।