রোজিনা ইসলামের মুক্তি চায় অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

প্রকাশিত: ৪:৪৮ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২১

রোজিনা ইসলামের মুক্তি চায় অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল

লন্ডন (যুক্তরাজ্য), ১৯ মে ২০২১ : সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে অভিযোগ আনাকে বাকস্বাধীনতা এবং বাংলাদেশের মানুষের তথ্য চাওয়া-পাওয়ার অধিকারের ওপর নির্মম আঘাত হিসেবে উল্লেখ করেছে তারা।
বুধবার অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সরকার কীভাবে কোভিড-১৯ টিকা কিনছে, সে-বিষয়ক তথ্য জনস্বার্থমূলক। এই তথ্য জাতীয় নিরাপত্তার মোড়কে গোপন করা উচিত নয়।
অ্যামনেস্টি বলেছে, ‘মহামারির সময়ে জনস্বাস্থ্য খাত কীভাবে কাজ করছে, সে বিষয় খুবই জনস্বার্থমূলক। রোজিনা ইসলাম কোভিড-১৯ মহামারির সময়ে গত কয়েক মাসে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের নানা অনিয়ম তুলে ধরেছেন। তাঁর গ্রেপ্তার ভিন্নমত বা সমালোচকদের মুখ বন্ধ করতে কালাকানুনের মাধ্যমে বাকস্বাধীনতার ওপর আরও বড় আঘাতের ক্রমবর্ধমান প্রবণতাকে ইঙ্গিত করে।’
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রোজিনা ইসলামকে যেভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তাঁর বিরুদ্ধে আমলযোগ্য ফৌজদারি অপরাধের সুস্পষ্ট প্রমাণ উপস্থাপনে কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা এই শঙ্কা তৈরি করেছে যে অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবেদন করার কারণেই তাঁকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে। ওই ধরনের প্রমাণ না থাকায় কর্তৃপক্ষের উচিত হবে তাঁকে অবিলম্বে মুক্তি দেওয়া।
প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম পেশাগত দায়িত্ব পালনে গত সোমবার বিকেলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে তাঁকে সেখানে প্রায় ছয় ঘণ্টা আটকে রাখা হয়। পরে শাহবাগ থানায় এনে তাঁর বিরুদ্ধে অফিশিয়াল সিক্রেটস আইনে মামলা করা হয়। ওই মামলায় এখন কারাগারে আছেন রোজিনা ইসলাম।
বাংলাদেশে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় পরিচিত মুখ রোজিনা ইসলাম সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বিভিন্ন প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য খাতের নানা অনিয়ম-দুর্নীতি এবং কোভিড-১৯ মোকাবিলায় অব্যবস্থাপনার চিত্র তুলে ধরেছেন।
রোজিনা ইসলাম গ্রেপ্তার হওয়ার পর এক টুইটে এই ঘটনাকে সাংবাদিকতার স্বাধীনতার ওপর আঘাত হিসেবে বর্ণনা করেছিল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে স্বাস্থ্য সচিবের অফিস স্টাফদের অসদাচরণ, আটকে রেখে হয়রানি ও তথ্য চুরির মতো হাস্যকর অভিযোগ এনে গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য, আরপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট সৈয়দ আমিরুজ্জামান বলেন, “এটা গণস্বার্থ রক্ষার জন্য বস্তুনিষ্ঠ ও প্রগতিশীল সাংবাদিকতার পরিপন্থী। যা গণমুখী সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীন বিকাশের জন্যও হুমকিস্বরূপ।”

সাংবাদিক দীপংকর ভট্টাচার্য লিটন ফেসবুক স্টেটাসে লিখেছেন, “সত্য প্রকাশে কন্ঠবোধ (গলা চেপে ধরা) এটা না গনমাধ্যম, না রাষ্ট্র কারো জন্যই সুখকর নয়। আমরা একদিকে বলি স্বাধীন গনমাধ্যম, আবার অন্য দিকে সত্য প্রকাশ করায় সাংবাদিকের কন্ঠ চেপে ধরতে। এটা শুধু গনমাধ্যকর্মীদের নয়, একটি গনতান্ত্রিক দেশের জন্যও লজ্জা। কতিপয় দুর্নীতিবাজ আমলাদের এমন নির্লজ্জ কর্মকান্ডে বহির্বিশ্বে নষ্ট হচ্ছে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি। তাই জেবুন্নেছাদের এখুনি থামান। মুক্তি দিন রোজিনা আাপাকে।”

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ