সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে রুখতে ‘৭২-এর সংবিধান বাস্তবায়নের দাবীতে সাতক্ষীরায় ওয়ার্কার্স পার্টির মানববন্ধন ও সমাবেশ

প্রকাশিত: ৫:৫৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৬, ২০২১

সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে রুখতে ‘৭২-এর সংবিধান বাস্তবায়নের দাবীতে সাতক্ষীরায় ওয়ার্কার্স পার্টির মানববন্ধন ও সমাবেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি | সাতক্ষীরা, ০৬ নভেম্বর ২০২১ :  কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে রুখতে ‘৭২-এর সংবিধান বাস্তবায়নের দাবীতে সাতক্ষীরায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (৬ নভেম্বর ২০২১) বিকাল ৪টায় সাতক্ষীরা জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির আয়োজনে জেলা পার্টির সভাপতি অধ্যাপক মহিবুল্লাহ মোড়লের সভাপতিত্বে শহরের নাজমুল স্মরণীস্থ পার্টির নিজস্ব কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় পলিটব্যুরোর সদস্য ও তালা-কলারোয়া-১ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এমপি।
পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক এ্যাড ফাহিমুল হক কিসলুর সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন কলারোয়া উপজেলার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফ মাস্টার, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য সদর উপজেলা সভাপতি কমরেড স্বপন কুমার শীল প্রমুখ।
মানববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিনি মার্কেট এলাকায় গিয়ে শেষ হয়।
উপস্থিত ছিলেন সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ময়নুল হাসান, আবেদুর রহমান, অজিত কুমার রাজবংশী, জেলা কমিটির সদস্য সরদার রফিকুল ইসলাম, জলিল মোড়ল, মফিজুল হক জাহাঙ্গীর, হিরন্ময় মন্ডলসহ তালা-কলারোয়া ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলার নেতৃবৃন্দ।
বক্তারা বাংলাদেশে ২০০১ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপরে বার বার হামলা, লুটপাট ও অগ্নি সংযোগ হত্যার মত অপরাধ সংঘটিত হলেও বিচার হচ্ছে না। অপরাধীরা প্রকাশ্যে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণেই দেশে বার বার এধরনের ন্যাক্কার জনক হামলা ঘটেই চলেছে। সম্প্রতি কুমিল্লার পুজা ম-পের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সারাদেশে পুজা ম-প, মন্দির এবং বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়েছে। ওই সব ঘটনার সাথে জড়িতদের দ্রুত বিচার আইনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি প্রদান করার দাবি জানান বক্তারা।
এছাড়া ওই ঘটনাকে কেন্দ্র ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে মসজিদ ও বাড়িঘর ভাংচুর করা হচ্ছে। এরও তীব্র নিন্দা জানান।
বক্তারা আরো বলেন, বাংলাদেশে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা দিতে হলে অবশ্যই ৭২ এর সংবিধানে ফিরে আসতে হবে। ৭২ এর সংবিধান বাস্তবায়ন ছাড়া মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়া সম্ভব নয়। হামলায় ক্ষতিগ্রস্থদের দ্রুত ক্ষতি পূরন দেওয়ার দাবি জানান বক্তারা।