বেগম রোকেয়া নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অগ্রদূত: মেনন

প্রকাশিত: ৪:৫৫ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১০, ২০২১

বেগম রোকেয়া নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অগ্রদূত: মেনন

নিজস্ব প্রতিবেদক | ঢাকা, ১০ ডিসেম্বর ২০২১ : “বেগম রোকেয়া কেবল নারী শিক্ষার জাগরণ নয়, নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার অগ্রদূত ছিলেন। “নারীর অধিকার মানবধিকার” বলে যে শ্লোগানটি এখন সদা উচ্চারিত একশ বছরের আগে বেগম রোকেয়ার লেখনীতে দৃঢ়ভাবে উঠে এসেছে। ধর্মান্ধতা ও ধর্মীয় কুসংস্কারের বিরুদ্ধে ছিল তার সাহসী উচ্চারণ, যা এখন করতে গেলে ভেবেচিন্তে করতে হয়, আক্রমণের মুখে পড়তে হয়।

আজ শুক্রবার (১০ ডিসেম্বর ২০২১) বিকাল ৩টায় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস ও বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ নারী মুক্তি সংসদ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি বক্তব্যে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি জননেতা রাশেদ খান মেনন এমপি এসব কথা বলেন।
‘বেগম রোকেয়া, নারী জাগরণ ও মানবাধিকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বাংলাদেশের নারী অধিকার সম্পর্কে মেনন বলেন, ধর্মান্ধতার কারণে নারীর পূর্ণাঙ্গ অধিকার এখনও প্রতিষ্ঠিত হতে পারেনি। ১৯৯৭ সালে জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি গৃহীত হলেও হেফাজতসহ বিভিন্ন ধর্মবাদী গোষ্ঠীর কারণে তা আজও বাস্তবায়িত হয়নি। নারীর প্রতি সহিংসতা তাদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় পুরুষকেও তার সহযাত্রী হতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় জাসদের সাধারণ সম্পাদক জননেতা শিরীন আখতার এমপি বলেন, বেগম রোকেয়া নারীদের পর্দার অবরোধ থেকে বেরিয়ে এসে সমাজ ও রাষ্ট্রে অংশগ্রহণ করেছিলেন।  বেগম রোকেয়ার অনুসৃত পথ ধরেই বাংলার নারীরা আজকে সমাজে রাজনীতি, অর্থনীতি, সংস্কৃতি ও প্রশাসনিক ক্ষেত্রে যোগ্যতর ভূমিকা পালন করে চলেছেন। তিনি বলেন, প্রতিটি স্কুল-কলেজে রোকেয়া রচনাবলি অবশ্য পাঠ্য করা উচিত।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সাবেক সংসদ সদস্য জননেতা হাজেরা সুলতানা।
সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির ঢাকা মহানগর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কমরেড আবুল হোসাইন, সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শিউলী সিকদার, শাহানা ফেরদৌসি লাকী, এড. জোবায়দা পারভিন, তাসলিমা আখতার, এড সুরাইয়া বেগম, বিপাশা চক্রবর্তী, চন্দনা দে প্রমুখ।