মানসিকভাবে শক্তিশালী মেয়েগুলো আর দশটা মানুষ থেকে আলাদা

প্রকাশিত: ৬:৩২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৭, ২০২১

মানসিকভাবে শক্তিশালী মেয়েগুলো আর দশটা মানুষ থেকে আলাদা

নাহিদ নুসরাত তিশা | ভোলা, ১৭ ডিসেম্বর ২০২১ : মানসিকভাবে শক্তিশালী মেয়েগুলো অন্য দশটা মেয়ে থেকে আলাদা হয়। এরা কথায় কথায় কাঁদতে পারেনা, ন্যাকামো করে কারো মন ভোলাতে পারে না, কাউকে খুশি করার জন্য অভিনয়টাও ঠিকঠাক করতে পারেনা।

এই মেয়েগুলো কষ্টগুলো বুকের ভিতর জমা করে রাখে। সবার থেকে লুকিয়ে রাখে কষ্টগুলো। তারা কষ্টের পাহাড় নিয়ে হাসি মুখে ঘুরে ফিরে, যেন কিছুই হয়নি। তাদের হাসি মুখ দেখে সবাই মনে করে এদের বুঝি কষ্টই হয় না, অনুভূতিশূন্য।

এই মেয়েরা হেরে যায় না কখনো, সময় পরিবর্তনের সাথে সাথে তারাও নিজেদের পরিবর্তন আনে। যে কোনো পরিস্থিতিতে তারা উঠে দাঁড়ায়।

জীবনে যত বাধাই আসুক না কেন, যত ঝড় উঠুক না কেন, তারা কারো ওপর নির্ভরশীল হয় না। নিজেরাই যুদ্ধে নেমে পড়ে, জয়ী না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ করতে থাকে। কষ্টগুলো হাসি মুখে সহ্য করে যায় দিনের পর দিন।

যখন কাউকে ভালোবাসে, নিজের সবটুকু দিয়ে তাদের ভালোবাসে।

এরা অহংকারী হয় না, কিন্তু নিজের উপর বিশ্বাস থাকে অটুট।

কিন্তু ওদেরও কষ্ট হয়। প্রচন্ড, তীব্র কষ্ট। এইসব মেয়েরা খুব একা হয়। কাছের বন্ধু বলতে তাদের কেউ থাকে না। ভলোবাসার মানুষদের কখনো কাছে পায় না।

বেশিরভাগ মানুষই তাদের ভুল বোঝে। সময়ের প্রয়োজনে ব্যবহার করে। আর এই বলে ছেড়ে চলে যায়, ‘ও অনেক স্ট্রং, ও পারবে নিজেকে সামলে নিতে।’

কিন্তু এই মেয়েগুলো প্রতিনিয়ত নির্ঘুম রাত কাটায়, অন্য দশটা মেয়ে থেকে বেশি যন্ত্রণায় কাতর হয়। এই মেয়েগুলোও চায় তাদের কেউ যত্ন করুক, বুকের মাঝে আগলে রাখুক, ঘুমিয়ে গেলে কপালে একটু চুমু দিক, শক্ত করে জড়িয়ে ধরুক, কেউ তার দায়িত্বটা নিক…খুব করে চায়।

দিনশেষে মেয়েগুলো একলা থাকে সকল মানুষের ভিড়ে, তখন কান্নাভেজা চোখে ঘুমিয়ে যায়। সকাল হলে আবার নতুন করে ঠিকই উঠে দাঁড়ায়।

এদের উঠে দাঁড়ানোতেই মানুষগুলো ভয় পায়।

কারো অধিকার নষ্ট করে নিজের জীবন সাজাতে জানেনা এরা।

মানসিকভাবে শক্তিশালী মেয়েরা জীবনের পদে পদে ভেঙে চূর্ণ-বিচূর্ণ হয় কিন্তু প্রতিবারই উঠে দাঁড়ায় আর জয়ী না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ করতে থাকে।

নীরব ভাষা………………………
😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞😞

17.12.2021

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ