মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও রাজনীতিবিদ সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিকের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত: ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২২

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও রাজনীতিবিদ সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিকের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক | ঢাকা, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২ : মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ১১ দফা আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি ও গণফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিকের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিকের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মৌলভীবাজার জেলা সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য, অারপি নিউজের সম্পাদক ও বিশিষ্ট কলামিস্ট কমরেড সৈয়দ অামিরুজ্জামান বলেছেন, ১৯৬৯ সালের ছাত্র-জনতার গণঅভ্যুত্থানের অন্যতম নেতা সাইফুদ্দিন আহমেদ মানিক ছিলেন স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের সামনের সারির নেতা। তিনি সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছিলেন দেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করা ও অগ্রসরমান বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে। আজ চলমান এই সংগ্রামে তার মতো নেতার প্রয়োজন ছিল। আমরা তার কর্মময় সংগ্রামী জীবনকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি।

সাইফউদ্দিন মানিক ’৬২, ’৬৪ ও ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের অন্যতম নেতা, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও শ্রমিক আন্দোলনের পথিকৃৎ ছিলেন।

রাজনীতিক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিক ২০০৮ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। ১৯৩৯ সালের ২৪ জুন পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তাঁর পিতা মৌলভি সিদ্দিক আহমদ ছিলেন একজন শিক্ষক এবং মাতা আলিফা খাতুন। তাঁর পৈত্রিক নিবাস ফেনী জেলার পরশুরাম থানার ধনিকুন্ডা গ্রামে।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ ডিগ্রি লাভ করেন। বাল্যকাল থেকেই খেলাধূলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে তিনি অনুরাগী ছিলেন। তিনি ছিলেন ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাব এবং সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সংস্কৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

সাইফউদ্দিন মানিক বিশ শতকের ষাটের দশকের প্রখ্যাত ছাত্রনেতা। ১৯৬২ সালে আইয়ুব খানের সামরিক শাসন ও শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট বিরোধী যে ছাত্র আন্দোলন গড়ে ওঠে তার সঙ্গে তিনি সক্রিয়ভাবে যুক্ত হন। ১৯৬৫ সালে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৬৬ সালে ছাত্র ইউনিয়ন এক অংশের সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। তিনি ছিলেন আইউব বিরোধী আন্দোলনে ছাত্রদের ১১-দফা কর্মসূচির অন্যতম প্রণেতা, ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা এবং উনসত্তুরের গণঅভ্যুত্থানের অন্যতম নায়ক।

মুক্তিযুদ্ধে ন্যাপ-সিপিবি-ছাত্র ইউনিয়ন কর্মিদের নিয়ে গঠিত যৌথ গেরিলা বাহিনীর অন্যতম সংগঠক ছিলেন সাইফউদ্দিন মানিক। স্বাধীনতা-উত্তর কালে তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিবি) কেন্দ্রীয় সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৮৭ সালে তিনি সিপিবির সাধারণ সম্পাদক এবং পরে সভাপতি নির্বাচিত হন। ১৯৯৪ সালে ‘গণফোরাম’ নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠনে তিনি উদ্যোগী ভূমিকা নেন এবং ১৯৯৬ সাল থেকে আমৃত্যু তিনি এ দলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।