লেনিনের দুনিয়া কাঁপানো ভাষণ, যা বিখ্যাত ‘এপ্রিল থিসিস’ নামে বিপ্লবের দিকনির্দেশনা 

প্রকাশিত: ১:০২ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৭, ২০২৪

লেনিনের দুনিয়া কাঁপানো ভাষণ, যা বিখ্যাত ‘এপ্রিল থিসিস’ নামে বিপ্লবের দিকনির্দেশনা 

সৈয়দ আমিরুজ্জামান |

লেনিন ভেঙেছে রুশে জনস্রোতে অন্যায়ের বাঁধ,
অন্যায়ের মুখােমুখি লেনিন প্রথম প্রতিবাদ।

আজকেও রাশিয়ার গ্রামে ও নগরে
হাজার লেনিন যুদ্ধ করে,
মুক্তির সীমান্ত ঘিরে বিস্তীর্ণ প্রান্তরে।

বিদ্যুৎ-ইশারা চোখে, আজকেও অযুত লেনিন
ক্রমশ সংক্ষিপ্ত করে বিশ্বব্যাপী প্রতীক্ষিত দিন,
বিপর্যস্ত ধনতন্ত্র, কণ্ঠরুদ্ধ, বুকে আর্তনাদ;
—আসে শত্রুজয়ের সংবাদ।

সযত্ন মুখােশধারী ধনিকেরও বন্ধ আস্ফালন,
কাপে হৃৎযন্ত্র তার, চোখে মুখে চিহ্নিত মরণ।

বিপ্লব হয়েছে শুরু, পদানত জনতার ব্যগ্র গাত্রোত্থানে,
দেশে দেশে বিস্ফোরণ অতর্কিতে অগ্ন্যুৎপাত হানে।

দিকে দিকে কোণে কোণে লেনিনের পদধ্বনি
আজো যায় শােনা
দলিত হাজার কণ্ঠে বিপ্লবের আজো সম্বর্ধনা।
পৃথিবীর প্রতি ঘরে ঘরে,
লেনিন সমৃদ্ধ হয় সম্ভাবিত উর্বর জঠরে।

আশ্চর্য উদ্দাম বেগে বিপ্লবের প্রত্যেক আকাশে
লেনিনের সূর্যদীপ্তি রক্তের তরঙ্গে ভেসে আসে;
ইতালী, জার্মান, জাপ, ইংলণ্ড, আমেরিকা, চীন,
যেখানে মুক্তির যুদ্ধ সেখানেই কমরেড লেনিন।

অন্ধকার ভারতবর্ষ ও বুভুক্ষায় পথে মৃতদেহ—
অনৈক্যের চোরাবালি; পরস্পর অযথা সন্দেহ।

দরজায় চিহ্নিত নিত্য শক্রর উদ্ধত পদাঘাত,
অদৃষ্ট ভর্ৎসনা-ক্লান্ত কাটে দিন, বিমর্ষ রাত
বিদেশী শৃঙ্খলে পিষ্ট, শ্বাস তার ক্রমাগত ক্ষীণ—
এখানেও আয়ােজন পূর্ণ করে নিঃশব্দে লেনিন।
লেনিন ভেঙেছে বিশ্বে জনস্রোতে অন্যায়ের বাঁধ,
অন্যায়ের মুখােমুখি লেনিন জানায় প্রতিবাদ।

মৃত্যুর সমুদ্র শেষ; পালে লাগে উদ্দাম বাতাস
মুক্তির শ্যামল তীর চোখে পড়ে, আন্দোলিত ঘাস।

লেনিন ভূমিষ্ঠ রক্তে, ক্লীবতার কাছে নেই ঋণ,
বিপ্লব স্পন্দিত বুকে, মনে হয় আমিই লেনিন।

-(‘লেনিন’ – সুকান্ত ভট্টাচার্য, ছাড়পত্র)

এপ্রিল থিসিস ছিল বলশেভিক নেতা কমরেড ভ্লাদিমির ইলিচ লেনিন প্রদত্ত দিকনির্দেশক দুনিয়া কাঁপানো বিখ্যাত ভাষণ।
১৯১৭ সালের ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের বিজয়ের পর এক বিশেষ পরিস্থিতিতে সুইজারল্যান্ডে দীর্ঘ নির্বাসিত জীবনের পর ১৯১৭ সালের ১৬ এপ্রিল (৩ এপ্রিল রাশিয়ান পুরনো দিনপঞ্জি অনুসারে) রাত্রে কমরেড লেনিন রাশিয়ায় ফিরে আসেন। পেত্রোগ্রাদে পৌঁছে তিনি তাৎক্ষনিকভাবেই অপেক্ষমাণ শ্রমিক ও সৈনিক জনতার সামনে এক ছোট্ট কিন্তু বিখ্যাত ভাষণ দেন, যাতে তিনি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবে বিজয় অর্জনের আহ্বান জানান। এটাই এপ্রিল থিসিস নামে পরিচিত। পরদিন ৪ঠা এপ্রিল প্রথমে বলশেভিকদের এক বৈঠকে এবং পরে বলশেভিক ও মেনশেভিকদের এক যৌথ সভায় যুদ্ধ ও বিপ্লব সম্পর্কে তিনি এক রিপোর্ট প্রদান করেন যা তার বক্তৃতাকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দেয়।[১]
থিসিসসমূহ :
এপ্রিল থিসিস বলশেভিক পত্রিকা প্রাভদায় প্রকাশিত হয়েছিল এবং শ্রমিক ও সৈনিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতগুলির সর্ব-রাশিয়া সম্মেলনের দুটি সভায় লেনিন ১৯১৭ সালের ১৭ এপ্রিল (৪ এপ্রিল রাশিয়ান পুরনো দিনপঞ্জি অনুসারে) থিসিসগুলি পড়েন।
থিসিসসমূহে লেনিন : [২]
সাময়িক সরকারকে বুর্জোয়া হিসেবে অভিযুক্ত করেন এবং সামান্যতম সমর্থন না করার নীতি প্রণয়ন করেন। তিনি বলেন সরকারকে সামান্যতম ছাড় দেওয়া চলবে না। বরং সাময়িক সরকারের পরদেশ দখল সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি ডাহা মিথ্যা তা স্পষ্ট করে দিতে হবে। তিনি প্রথম বিশ্বযুদ্ধকে পররাজ্যগ্রাসী সাম্রাজ্যবাদ হিসেবে অভিযুক্ত করেন।
রাশিয়ার পরিস্থিতির বিশেষত্বে বলেন যে, প্রলেতারিয়েতের শ্রেণীচেতনা ও সংগঠন যথেষ্ট শক্তিশালী না থাকার কারণে বিপ্লবের প্রথম পর্বে ক্ষমতা তুলে দেওয়া হয়েছে বুর্জোয়াদের হাতে, এবং সেই পর্যায় অতিক্রম করে দেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে বিপ্লবের দ্বিতীয় পর্বে যেখানে ক্ষমতা অবশ্যই প্রলেতারিয়েত এবং কৃষকদের সবচেয়ে গরিব অংশগুলোর হাতে হস্তান্তরিত হবে।
পরিচিত করেন যে “শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলির বেশির ভাগের মধ্যে বলশেভিকরা সংখ্যালঘু, এখন অবধি ক্ষুদ্র সংখ্যালঘু, আর আমাদের বিরুদ্ধে রয়েছে একটা জোট যেটার মধ্যে আছে সমস্ত পেটি-বুর্জোয়া সুবিধাবাদীরা, জনপ্রিয় সমাজতন্ত্রী এবং সোশ্যালিস্ট-রেভলিউশনারি থেকে শুরু করে অরগানাইজিং কমিটি (চখেইজে, সেরেতেলি আরও সব), স্তেকলোভ, আরও অনেকে, যারা বুর্জোয়াদের প্রভাবের কাছে বশ্যতাস্বীকার করেছে এবং এই প্রভাবকে প্রলেতারিয়েতের মধ্যে বিস্তৃত করেছে।”
পার্লামেন্টারি প্রজাতন্ত্রের বিরুদ্ধে ডাক দেন এবং শ্রমিক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলি থেকে পার্লামেন্টারি প্রজাতন্ত্রে ফিরে যাওয়া হবে একটা পশ্চাৎমুখ্য পদক্ষেপ তা বলেন। তারা চান সারা দেশে তৃণমুল থেকে উপর পর্যন্ত শ্রমিক, ক্ষেতমজুর আর কৃষক প্রতিনিধি সোভিয়েতগুলির প্রজাতন্ত্র।
পুলিশ, সেনাবাহিনী এবং আমলাতন্ত্রের বিলোপসাধনে ডাক দেন। তিনি বলেন, সকল কর্মকর্তাকে নির্বাচিত হতে হবে, “তারা সবাই হবেন যেকোন সময় অপসারণযোগ্য, তাদের কারও বেতন একজন দক্ষ শ্রমিকের গড় মজুরি অতিক্রম করতে পারবে না।”
ডাক দেন এই বলে যে, “ভূমিবিষয়ক কর্মসূচীতে গুরুত্বের ভরকেন্দ্রটা ক্ষেতমজুর প্রতিনিধি সোভিয়েতের হাতে তুলে দিতে হবে। জমিদারদের সকল ভূসম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা” হবে। এছাড়াও ডাক দেন, “দেশের সমস্ত ভূমির রাষ্ট্রীয়করণ সম্পন্ন করতে হবে, ভূমির বিলিব্যবস্থা স্থানীয় ক্ষেতমজুর এবং কৃষক সোভিয়েতগুলির হাতে হস্তান্তর করতে হবে। পৃথক পৃথক গরিব কৃষক প্রতিনিধিদের সোভিয়েত গুলির নিয়ন্ত্রণাধীনে এবং সরকারী খরচে প্রত্যেকটা বৃহৎ ভূসম্পত্তিতে একটা আদর্শ খামার স্থাপন করতে হবে (স্থানীয় আর অন্যান্য অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে এবং স্থানীয় সংস্থাগুলির সিদ্ধান্ত অনুসারে খামারের আকার ১০০ থেকে ৩০০ দেসিয়াতিনা হতে পারে।”
একটি জাতীয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হবে।
একটা বিপ্লবী আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠা করা হবে যা পরে Comintern বা তৃতীয় আন্তর্জাতিক হিসেবে ১৯১৯ সালে গঠিত হয়।
বুর্জোয়াদের সমালোচনা
এপ্রিল থিসিস প্রকাশিত হলে তা বিপ্লবী প্রলেতারিয়েতের শত্রুপক্ষকে খেপিয়ে তুলল। বুর্জোয়া পত্রপত্রিকায় লেনিনের বিরুদ্ধে জঘন্যতম কুৎসা প্রচার করতে লাগলো। লেনিন জার্মানির ভেতর দিয়ে রুশদেশে ফিরে এসেছেন, এই ঘটনাকে ব্যবহার করে বলা হতে লাগল যে জার্মান সাম্রাজ্যবাদকে সাহায্য করবার জন্যই এই এপ্রিল থিসিস। এই তুমুল কুৎসা রটনা সত্ত্বেও ১৪ এপ্রিল তারিখে যখন বলশেভিকদের পেত্রোগ্রাদ নগর সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো তখন অধিকাংশ প্রতিনিধিই এপ্রিল থিসিসকে সমর্থন করলেন। রুশ দেশে সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের প্রস্তুতি গড়ে তোলবার জন্যে ডাক দেয়া হলো বলশেভিকদের।[৩]
বলশেভিক নেতা এবং লেনিনের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক কমরেডদের একজন, তার স্ত্রী নাদেজ্দা ক্রুপস্কায়া বর্ণনা করেছেন যে জুলিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে তারা মার্চের শুরুতে একদিন মধ্যাহ্নভোজ শেষ করার সময়, পোলিশ মার্কসবাদী মাইকজিস্লা ব্রনস্কি তাদের অ্যাপার্টমেন্টে ছুটে আসেন। তিনি চিৎকার করে বললেন, “তোমরা কি খবরটা শোননি? রাশিয়ায় বিপ্লব হয়েছে!”

ক্রুপস্কায়া ১৯৩৩ সালে লেনিনের স্মৃতিচারণায় লিখেছেন: 

ব্রনস্কি চলে যাওয়ার পরে, আমরা হ্রদের পাড়ে গেলাম, যার তীরে সমস্ত সংবাদপত্র বেরিয়ে আসার সাথে সাথে লাগানো হয়েছিল।

আমরা বেশ কয়েকবার রিপোর্টগুলি পড়ি। সত্যিকার অর্থেই রাশিয়ায় বিপ্লব ঘটেছে। ইলিচের মন তখনই কাজে লেগে গেল। বাকি দিন-রাত কীভাবে কেটেছে তা আমার খুব কমই মনে পড়ে। পরের দিন, ফেব্রুয়ারী বিপ্লবের দ্বিতীয় ব্যাচের সরকারী প্রতিবেদনে পাওয়া যায় ইলিচ স্টকহোমে কোলোনতাইকে লিখেছেন: “সেকেন্ড ইন্টারন্যাশনালের মতো সেই পথে আর কখনো নয়! কাউটস্কির সাথে আর কখনো নয়! সর্বোপরি আরও বিপ্লবী কর্মসূচি এবং কৌশল।” এবং আরও এগিয়ে: ‘…আগের মতো, বিপ্লবী প্রচার, আন্দোলন এবং সংগ্রাম একটি আন্তর্জাতিক সর্বহারা বিপ্লবের লক্ষ্যে এবং শ্রমিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েত দ্বারা ক্ষমতা বিজয়ের জন্য…’ [1]

ভৌগলিকভাবে, লেনিন অবশ্যই রাশিয়া থেকে বিচ্ছিন্ন ছিলেন। তার মানে এই নয় যে, তার কোনো প্রভাব ছিল না। জুরিখে নির্বাসিত বলশেভিক নেতৃত্ব, যেখানে শুধু লেনিন এবং ক্রুপস্কায়া নয়, ইনেসা আরমান্ডের মতো উল্লেখযোগ্য বিপ্লবীও ছিলেন, রাশিয়ার অবৈধ বলশেভিক সংগঠনের সাথে যতটা সম্ভব যোগাযোগ বজায় রেখেছিলেন – প্রধানত চিঠি এবং টেলিগ্রামের মাধ্যমে যা পাঠানো হতো নিরপেক্ষ সুইডেনে আলেকজান্দ্রা কোলোনতাই-এর মতো বিশ্বস্ত ব্যক্তিদের, যা তখন ফিনল্যান্ডে পাচার হতো, তারপর সেন্ট পিটার্সবার্গে পাচার করা হতো এবং সেখান থেকে ধীরে ধীরে আরও ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তো।

১৯১৭ সালের মার্চ মাসে, লেনিন তার ৪৭তম জন্মদিনের কাছাকাছি। হালকাভাবে বলতে গেলে, তিনি দরিদ্র, অবস্থার মধ্যে বসবাস করছিলেন। ক্রুপস্কায়া বর্ণনা করেছেন যে তাদের ঘরটি ‘একটি নোংরা পুরানো বাড়িতে, আমার মনে হয়, যা ষোড়শ শতাব্দীতে নির্মিত এবং সাথে একটি দুর্গন্ধযুক্ত উঠান ছিল।’ তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে, ১৯১৬ সালের শেষের দিকে, ‘আমরা আমাদের জীবনযাত্রার ব্যয় একেবারে ন্যূনতম স্তরে কমিয়ে দিয়েছিলাম।’ বলশেভিক নির্বাসিতরা সম্পদের অভাব দ্বারা জর্জরিত ছিল – একটি অবস্থা, যা প্রশ্ন ছাড়াই বলা যেতে পারে লেনিনের স্বাস্থ্য সমস্যায় অবদান রেখেছিল।

ফেব্রুয়ারী বিপ্লবের প্রতি লেনিনের প্রতিক্রিয়া আন্তর্জাতিকতাবাদী দৃষ্টিকোণ থেকে প্রবাহিত হয়েছিল যার জন্য তিনি তার রাজনৈতিক জীবন জুড়ে লড়াই করেছিলেন, এবং বিশেষ করে ১৯১৪ সালের আগস্টে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকের বিশ্বাসঘাতকতার পরে, যখন প্রথম বিশ্বযুদ্ধে এর বেশিরভাগ দল এবং নেতারা তাদের নিজস্ব পুঁজিবাদী শ্রেণীকে সমর্থন করেছিল।

এমনকি বিশ্বাসঘাতকতার বিরোধিতাকারী মার্কসবাদীদের মধ্যেও লেনিন ছিলেন সংখ্যালঘু।

বেশিরভাগ যুদ্ধবিরোধী প্রবণতা, যা জিমারওয়াল্ড ইন্টারন্যাশনাল নামে পরিচিত হয়েছিল, গ্রামের নাম অনুসারে, যেখানে ১৯১৫ সালে মিলিত হয়েছিল, তাঁরা যুদ্ধরত দেশগুলির সরকারকে শান্তি আলোচনায় চাপ দেওয়ার নীতির পক্ষে প্রস্তাব দেয়।

লেনিন জোর দিয়েছিলেন যে সমগ্র ইউরোপ এবং সারাবিশ্বে শুধুমাত্র সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবই স্থায়ী শান্তি এবং সভ্যতার ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে পারে। প্রকৃত আন্তর্জাতিকতাবাদীদের, মার্কসবাদীদের সমস্ত কাজ, তাদের নিজ দেশে শ্রেণী সংগ্রামের বিকাশ এবং তাদের নিজস্ব শাসক শ্রেণীকে উৎখাত করার জন্য প্রস্তুত করার কাজে নিবেদিত হতে হবে – লেনিনের স্লোগানে নিহিত বিপ্লবী দৃষ্টিভঙ্গি ছিল: “সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধকে গৃহযুদ্ধতে পরিণত কর।’

১৯১৫ সালে যুদ্ধবিরোধী জিমারওয়াল্ড সম্মেলনে লেনিন ‘বামপন্থী’ এর পক্ষে যে প্রস্তাবটি লিখেছিলেন তা শুরু হয়েছিল:

বর্তমান যুদ্ধের উদ্ভব হয়েছে সাম্রাজ্যবাদ থেকে। পুঁজিবাদ ইতিমধ্যেই সেই সর্বোচ্চ পর্যায় অর্জন করেছে। সমাজের উৎপাদন শক্তি পৃথক জাতীয় রাষ্ট্রের সংকীর্ণ সীমা ছাড়িয়ে গেছে… সমগ্র বিশ্ব একক অর্থনৈতিক ব্যাবস্থায় সন্মিলিত হচ্ছে; এটি মুষ্টিমেয় মহাশক্তিধরদের নিয়ে উৎকীর্ণ হয়েছে। সমাজতন্ত্রের বস্তুনিষ্ঠ অবস্থা সম্পূর্ণরূপে পরিপক্ক, এবং বর্তমান যুদ্ধ হল পুঁজিবাদীদের বিশেষ সুবিধা এবং একচেটিয়া অধিকারের যুদ্ধ যা পুঁজিবাদের পতনকে বিলম্বিত করতে পারে।

জিমারওয়াল্ড বামদের খসড়া রেজল্যুশন এর উপসংহারে:

সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ সামাজিক বিপ্লবের যুগের সূচনা করছে। সাম্প্রতিক সময়ের সমস্ত বস্তুনিষ্ঠ পরিস্থিতি সর্বহারা শ্রেণীর বিপ্লবী গণসংগ্রামকে দিনের ক্রমানুসারে রেখেছে। শ্রমিক শ্রেণীর আইনি লড়াইয়ের প্রতিটি উপায় ব্যবহার করার সময়, এই আশু এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য সেই সমস্ত উপায়গুলির প্রত্যেকটিকে অধীনস্থ করা, শ্রমিকদের বিপ্লবী চেতনার বিকাশ করা, তাদের আন্তর্জাতিক বিপ্লবী আন্দোলনের সাথে একত্রিত করা সমাজতন্ত্রীদের কর্তব্য, যে কোনো বিপ্লবী পদক্ষেপকে, প্রচার ও উৎসাহিত করা এবং জনগণের মধ্যে সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধকে তাদের নিপীড়কদের বিরুদ্ধে শ্রেণী গৃহযুদ্ধতে পরিনত করা, পুঁজিপতি শ্রেণীর দখলের যুদ্ধ, রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা সর্বহারা শ্রেণীর দ্বারা, এবং সমাজতন্ত্রের উপলব্ধি। [২]

এই দৃষ্টিকোণটি দাবি করেছিল, লেনিন জোর দিয়েছিলেন, একটি নতুন, তৃতীয় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠা, যা কেবল বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ দলগুলির সমন্বয়ে গঠিত হবে। এই প্রশ্নে, সর্বোপরি, লেনিনের জিমারওয়াল্ড ইন্টারন্যাশনালে সমর্থন ছিল না। সংখ্যাগরিষ্ঠরা এই সম্ভাবনাতেই আটকে ছিল যে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকটি মার্কসবাদে ফিরে যেতে পারে।

লেনিন নিশ্চিত হয়েছিলেন যে একই দ্বন্দ্ব যা সাম্রাজ্যবাদকে বিশ্বযুদ্ধের দিকে চালিত করেছে, শ্রমজীবী ​​শ্রেণিকে বিপ্লবী সংগ্রামের দিকে চালিত করবে এবং মার্কসবাদীদের অত্যধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজটি হল তার জন্য প্রস্তুত হওয়া। তবে তিনি ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারেননি যে কখন সেই বিপ্লব শুরু হবে, বা কোথায় এটি শুরু হবে।

প্রকৃতপক্ষে, ১৯১৭ সালের জানুয়ারিতে, জুরিখে মার্কসবাদী যুবকদের দ্বারা আয়োজিত এক সভায় শ্রোতাদের কাছে দেওয়া একটি বক্তৃতায় লেনিন এই শব্দগুলির সাথে উপসংহার টেনেছিলেন: ‘আমরা যারা প্রবীণ প্রজন্ম তাঁরা হয়তো আসন্ন বিপ্লবের লড়াইগুলি দেখা পর্যন্ত বাঁচে থাকব না।’ [3]

মাত্র কয়েক সপ্তাহ পরে, ফেব্রুয়ারিতে বিপ্লব শুরু হয়েছিল এবং লেনিন বেঁচে ছিলেন দেখার জন্য এবং ‘এই আসন্ন বিপ্লবের সিদ্ধান্তমূলক লড়াই’ এর নেতৃত্ব দিতে উভয় ক্ষেত্রেই।

লেনিন এবং সুইজারল্যান্ডে অন্যান্য নির্বাসিত বিপ্লবীদের যে কেন্দ্রীয় সমস্যাটির মুখোমুখি হতে হয়েছিল তা হ’ল কীভাবে রাশিয়ায় ফিরে যাওয়া যাবে। সুইজারল্যান্ড ভূমি দিয়ে ঘেরা এক- দেশ। সেই সময় এটির দক্ষিণে ইতালি, পশ্চিমে ফ্রান্স, পূর্বে অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সাম্রাজ্য এবং উত্তরে জার্মান সাম্রাজ্য সীমান্তবর্তী ছিল। রাশিয়া অস্ট্রিয়া এবং জার্মানি উভয়ের সাথেই যুদ্ধে লিপ্ত ছিল এবং ফ্রান্সের সাথে জোটবদ্ধ ছিল। ফরাসী ক্ষমতাসীন শ্রেণি লেনিনের মতো যুদ্ধবিরোধী ব্যক্তিত্বকে রাশিয়ায় ফিরে আসতে সহায়তা করবে না।

সময় ছিল কেন্দ্রবিন্দু।

লেনিন এবং বলশেভিকরা যেমনটি প্রত্যাশা করেছিলেন, এবং লিও ট্রটস্কি আরও স্পষ্টভাবে, তার স্থায়ী বিপ্লবের তত্ত্বে, বিপ্লবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিল শ্রমিক শ্রেণী। শ্রমিকদের সাথে কয়েক লক্ষ সৈন্য যোগ দিয়েছিল, যাদের বেশিরভাগই, তাদের শ্রেণী পটভূমিতে, রাশিয়ার বিশাল যে কৃষকশ্রেণী তাদের নিম্ন, দরিদ্র অংশ থেকে এসেছিল।

রাশিয়ার পরিস্থিতি ‘দ্বৈত শক্তির’ একটি ছিল। প্রকৃত শক্তি, সেই অর্থে জনগণের সক্রিয় সমর্থন, যা সোভিয়েতগুলির উপর নির্ভর, যার কর্তৃত্ব সশস্ত্র সৈন্য এবং শ্রমিকদের মিলিশিয়াদের শক্তি দ্বারা সমুন্নত ছিল। সোভিয়েতের মধ্যে মেনশেভিক এবং সামাজিক বিপ্লবী (এসআর) পার্টির নেতারা, তবে, বুর্জোয়া দলগুলির দ্বারা প্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করার জন্য সচেতনভাবে কাজ করছিল, যেটি পুঁজিবাদী শ্রেণীর প্রতিনিধিত্ব করত এবং এখনও বৃহত্তরভাবে অক্ষত জারবাদী রাষ্ট্রযন্ত্রের সাথে সম্পর্কের কোন ঘাটতি ছিল না।

রাশিয়া, বুর্জোয়া দলগুলি জোর দিয়েছিল, সাজা দিতে জার্মানি এবং অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরির বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে এবং তার ব্রিটিশ ও ফরাসি সাম্রাজ্যবাদী মিত্রদের প্রতি তার বাধ্যবাধকতা পূরণ করতে হবে। যার মধ্যে তারা এটাও দাবি করেছিল যে নতুন সংবিধান গঠণের জন্য যে গণপরিষদ নির্বাচিত হবে সেটাকেও পিছিয়ে দিতে হবে যুদ্ধে ‘বিজয়’ না হওয়া পর্যন্ত। সৈন্যদের সামরিক শৃঙ্খলায় ফিরিয়ে আনতে হবে এবং সশস্ত্র শ্রমিকদেরকে তাদের অস্ত্র রাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করতে হবে।

শ্রমিক শ্রেণী অবশ্য নিজেদের দাবিগুলোই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিল। এটি তার স্বাধীন কর্মের মাধ্যমে চাপ দিয়েছিল, পুঁজিবাদী নিয়োগকর্তাদের দিনে আট ঘন্টা কাজের সময় মেনে নিতে বাধ্য করেছিল। এটি কারখানা এবং কর্মক্ষেত্রের উপর এক ধরণের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করেছিল। এটি মূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং এর অবস্থা উপশম করার জন্য অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছিল। সর্বোপরি, শ্রমিকরা যুদ্ধের বিপর্যয়ের অবসান করার দাবি জানাচ্ছিল, যাতে প্রায় ১.৭৫ মিলিয়ন রাশিয়ান সৈন্যের জীবন নিয়েছিল এবং আরও লক্ষ লক্ষ মানুষকে শারীরিকভাবে আহত বা আঘাতপ্রাপ্ত করেছিল।

শ্রমিকদের মতো সৈন্যরাও শান্তির দাবি জানাচ্ছিল। ট্রটস্কি যেমন তার দ্য হিস্ট্রি অফ দ্য রাশিয়ান রেভ্যুলেশন-এ উল্লেখ করেছেন, কৃষক সৈন্যরা যথার্থই উপসংহারে পৌঁছেছিলেন যে ভূমি সংস্কার এবং গণতান্ত্রিক স্বাধীনতা তাদের জন্য খুব বেশি অর্থ বহন করবে না যদি তারা মারা যায়।

শ্রমিক শ্রেণী এবং সৈন্যদের দাবিগুলি সবচেয়ে স্পষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছিল বলশেভিক-প্রভাবিত শ্রমিকদের অংশ এবং সামরিক বাহিনীর রেজোলিউশনে, সোভিয়েতগুলিকে তাদের হাতে ক্ষমতা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিল।

যুদ্ধের প্রশ্নটি দ্রুত কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে। সোভিয়েতের মেনশেভিক নেতারা, যারা তখনও পর্যন্ত মৌখিকভাবে রুশ সম্পৃক্ততার বিরোধিতা করেছিলেন, যেমন চেহেদজে এবং সেরেতেলি, পাশাপাশি সামাজিক বিপ্লবী নেতা আলেকজান্ডার কেরেনস্কি, যিনি অস্থায়ী সরকারে মন্ত্রিত্ব নিয়েছিলেন, তারা জোর দিয়েছিলেন যে ফেব্রুয়ারি বিপ্লব, এবং লাভগুলি যা এটি অর্জন করেছিল, প্রথম বিশ্বযুদ্ধে রাশিয়ার অংশগ্রহণের চরিত্রকে ‘পরিবর্তন’ করেছে। তারা ঘোষণা করেছিল যে এটি আর রাশিয়ার পক্ষ থেকে একটি লুন্ঠনমূলক যুদ্ধ ছিল না, কিন্তু ‘গণতন্ত্র’ রক্ষা এবং জার্মান এবং অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ানদের বিরুদ্ধে বিপ্লবের জন্য একটি সামরিকবাদ – যুদ্ধকে ন্যায্যতা দিতে যা ‘বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদ’ হিসাবে পরিচিত।

‘বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদ’ এর অবস্থানটি উদ্দেশ্যমূলকভাবে অস্থায়ী সরকারের কাছে জনসাধারণকে এবং সোভিয়েতগুলিকে অধীনস্ত সম্পন্ন করার লক্ষ্যে ছিল। এবং এটি বহু-মিলিয়ন কৃষক সৈনিক জনসাধারণের পাশাপাশি বৃহত্তর স্তরগুলির উপর একটি অনস্বীকার্য প্রভাব ফেলেছিল, যারা কেবলমাত্র রাজনৈতিক জীবনে প্রবেশ করতে শুরু করেছিল এবং তাদের রাজনৈতিক উপলব্ধি ও চেতনার স্তর কম ছিল। বহিরাগত আগ্রাসনের হাত থেকে বিপ্লবের লাভগুলিকে রক্ষা করার প্রয়োজন অর্থবহ বলে মনে হয়েছিল। সৈন্যরা জারের লুন্ঠনকারী লক্ষ্যের জন্য যুদ্ধ করবে না। যাইহোক, যদি প্রয়োজন হয়, তারা এমন একটি সরকারকে রক্ষা করার জন্য লড়াই করবে যা তাদের ভূমি সংস্কার, গণতন্ত্র এবং শান্তি প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

১৪ই মার্চ, পেট্রোগ্রাদ সোভিয়েতের মেনশেভিক এবং সোশ্যাল রেভ্যুলেশানারিদের-নিয়ন্ত্রিত কার্যনির্বাহী কমিটি ‘বিশ্বের কাছে একটি ইশতেহার’ নামে একটি ইশতেহার গ্রহণ করেছিল, তাতে ঘোষণা করে যে রাশিয়া শান্তি চায়, কিন্তু ‘দৃঢ়ভাবে আমাদের নিজস্ব স্বাধীনতাকে রক্ষা করবো।’ এটি জার্মান এবং অস্ট্রিয়ান শ্রমিকদের আহ্বান জানায় ‘রাজা, জমিদার এবং ব্যাঙ্কারদের হাতের পুতুল হয়ে এবং স্পলিয়েশনের একটি হাতিয়ার হিসাবে কাজ করতে অস্বীকার করার জন্য!’

যেমনটি ট্রটস্কি পরে তার দ্য হিস্ট্রি অফ রুশ রেভ্যুলেশন-এ পর্যবেক্ষণ করেছেন, ব্রিটেন এবং ফ্রান্সের সাথে রাশিয়ার সাম্রাজ্যবাদী জোট প্রত্যাখ্যানের জন্য এই ধরনের কোন দাবি উত্থাপিত হয়নি, ব্রিটিশ ও ফরাসি শ্রমিকদের ‘বিজয়ের হাতিয়ার’ হিসেবে কাজ করতে অস্বীকার করার জন্য, রাশিয়ার জমিদার এবং ব্যাংকারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। তবুও ইশতেহারটি পেট্রোগ্রাদ সোভিয়েত সর্বসম্মতভাবে সমর্থন করেছিল।

সোভিয়েতগুলির মধ্যে যারা ১৪ই মার্চ কার্যনির্বাহী কমিটির ইশতেহারকে সমর্থন করেছিলেন তাদের মধ্যে কয়েক ডজন বলশেভিক প্রতিনিধিও ছিলেন। এটি এমন একটি সিরিজ অনুসরণ করে যেখানে বলশেভিক কমিটিগুলি মেনশেভিক এবং এসআর-এর অবস্থানের সাথে খাপ খাইয়ে নিয়েছিল এবং পেট্রোগ্রাদের ভাইবোর্গ জেলার মতো শ্রমিক-শ্রেণির দুর্গে পার্টির অংশগুলির মধ্যে তীব্র মতবিরোধের মুখেও নতুন অস্থায়ী সরকারের জন্য ‘গুরুত্বপূর্ণ সমর্থন’ প্রকাশ করেছিল।

১৫ই মার্চ, সোভিয়েতের ‘বিশ্বের কাছে ইশতেহার’ এর পরের দিন এবং পার্টির উপর বিশাল শ্রেণী চাপ প্রতিফলিত করে, বলশেভিক নেতা লেভ কামেনেভ, যিনি জোসেফ স্ট্যালিনের সাথে পার্টির সংবাদপত্র প্রাভদা নিয়ন্ত্রণে ছিলেন, একটি সম্পাদকীয়তে লিখেছেন: ‘যদিও শান্তি নেই, জনগণকে তাদের অবস্থানে অবিচল থাকতে হবে, বুলেটের বিনিময়ে বুলেট এবং শেল দিয়ে শেলের জবাব দিতে হবে।’ [৪]

স্টালিন পরের দিন লিখেছিলেন: “আমাদের স্লোগানটি খালি চিৎকার নয় ‘যুদ্ধ বন্ধ করুন!’—যার অর্থ বিপ্লবী সেনাবাহিনীকে অসংগঠিত করা এবং সেই সেনাবাহিনীর যা আগের যে কোন সময়ের চেয়ে আরও বিপ্লবী হয়ে উঠছে। আমাদের স্লোগান হল অস্থায়ী সরকারের উপর চাপ রাখা যাতে এটি করতে বাধ্য হয়, অবশ্যই, প্রকাশ্যে এবং বিশ্ব গণতন্ত্রের চোখের সামনে, সমস্ত যুদ্ধরত দেশগুলিকে বিশ্বযুদ্ধের অবসানের জন্য অবিলম্বে আলোচনা শুরু করার জন্য প্ররোচিত করতে বাধ্য করা যায়। ততক্ষণ সবাই যে যার পদে থাকুক।” [৫]

বলশেভিক পার্টির কিছু অংশ প্রাভদার লাইনের বিরোধিতা করেছিল। কিন্তু এতে কোন সন্দেহ নেই যে পার্টির মধ্যে অস্থায়ী সরকারকে মেনে নেওয়ার প্রবণতা গড়ে উঠছিল, মেনশেভিক ও এসআর এর সোভিয়েতের নিয়ন্ত্রণ করা তার থেকে আলাদা, এবং শ্রমিক শ্রেণীর স্বাধীন সংগ্রামকে সীমিত ও হ্রাস করার দিকে।

লেনিন তার লেটার ফর্ম ফার যে রাজনৈতিক লাইনটি বলেছিলেন – বুর্জোয়া সরকারের প্রতি কোনও সমর্থন নয়, যুদ্ধের বিরুদ্ধে পার্টির বিরোধিতায় কোনও পরিবর্তন নয় এবং সোভিয়েত ও শ্রমিক শ্রেণীর দ্বারা ক্ষমতা গ্রহণের লড়াই – একে বলশেভিক নেতৃত্ব উপেক্ষা করেছিল। এমনকি তার চারটি চিঠির মধ্যে মাত্র একটি প্রাভদাতে প্রকাশিত হয়েছিল, এবং এটিও উল্লেখযোগ্যভাবে সম্পাদনা করা হয়েছিল, যার মধ্যে একটি অংশকে বাদ দেওয়া হয়েছিল যেখানে লেনিন অস্থায়ী সরকারকে সমর্থনকারী যে কাউকে ‘শ্রমিকদের প্রতি বিশ্বাসঘাতক, প্রলেতারিয়েত, শান্তি ও স্বাধীনতার পক্ষে বিশ্বাসঘাতক’ বলে নিন্দা করেছিলেন। ।’ [৬]

কামেনেভ এবং স্ট্যালিনের যুক্তি ছিল যে অস্থায়ী সরকারকে সমলোচনামূলক সমর্থন প্রয়োজন ফেব্রুয়ারি বিপ্লবের লাভগুলিকে একত্রিত করার জন্য এবং ভবিষ্যতে বলশেভিকদের ‘সর্বহারা ও কৃষকদের গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ প্রতিষ্ঠার জন্য লড়াই করার পক্ষে সর্বোত্তম পরিস্থিতি তৈরি করতে যা রাশিয়ায় বুর্জোয়া বিপ্লব “সম্পূর্ণ” করবে।

যেমনটি ট্রটস্কি লিখেছেন: ‘কামেনেভ-স্টালিন গোষ্ঠী ক্রমাগতভাবে তথাকথিত বিপ্লবী গণতন্ত্রের একটি বাম অংশে নিজেকে রূপান্তরিত করছিল, এবং বুর্জোয়াদের উপর পার্লামেন্টারি চাপের মেকানিক্সে অংশ নিচ্ছিল।’ [৭]

মার্চের শেষের দিকে, অস্থায়ী সরকার এবং ‘বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদ’ এর জন্য তাদের পারস্পরিক সমর্থন, গুরুত্বপূর্ণ বা অন্য, দীর্ঘ-বিভক্ত বলশেভিক এবং মেনশেভিক প্রবণতাগুলির পুনর্মিলনের বিষয়ে, বিভিন্ন স্তরে আলোচনা ভালভাবে চলছিল।

পটভূমিতে, সোভিয়েতের দলগুলো যখন অস্থায়ী সরকারের কাছে ক্ষমতা তুলে দিতে চেয়েছিল, তখন বুর্জোয়া দলগুলোর মধ্যে যারা ছিল তারা প্রাক্তন জারবাদী জেনারেলদের সাথে ষড়যন্ত্র করছিল যেদিন বিপ্লবকে পর্যাপ্তভাবে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল শ্রমিক শ্রেণীকে রক্তাক্তভাবে দমন করার জন্য।

সোভিয়েতগুলি এবং বিশেষ করে বলশেভিকদের দ্বারা প্রতিটি সমঝোতার সাথে প্রতিবিপ্লবের বিপদ বেড়ে যায়।

রাজনৈতিক নেতা হিসেবে তার দায়িত্ব এবং তার সিদ্ধান্ত ও কর্মের সম্ভাব্য প্রভাব সম্পর্কে লেনিনের গভীর উপলব্ধি ছিল। তিনি পরিস্থিতির জরুরীতা উপলব্ধি করেছিলেন। বলশেভিক পার্টি মোড় নিয়েছিল পুঁজিবাদী শ্রেণীর দোসরে এবং যুদ্ধের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে।

বহু বছর নির্বাসনে থাকা সত্ত্বেও, লেনিন তার পার্টি এবং এর সদস্যদের গুণমান জানতেন। তারা মার্কসবাদে শিক্ষিত, রাজনৈতিকভাবে সচেতন এবং সমাজতন্ত্রের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তিনি আশা করেছিলেন যে কামেনেভ এবং স্ট্যালিনের অবস্থান বলশেভিক আন্দোলন এবং এর ভিত্তির মধ্যে প্রতিরোধের মুখোমুখি হবে। যাই হোক না কেন, রাশিয়ার মধ্যে ঘটনাগুলি অন্ধ গতিতে চলছিল, বলশেভিক পার্টি সংকটে ছিল এবং পেট্রোগ্রাদে তার নিজের উপস্থিতি গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

১৯শে মার্চ জুরিখে নির্বাসিত থাকা রাশিয়ানদের মধ্যে একটি আলোচনায়, মেনশেভিক নেতা জুলিয়াস মার্টোভ পরামর্শ দিয়েছিলেন জার্মানির মধ্য দিয়ে যাওয়ার অনুমতি নেবার জন্য জার্মান সরকারের সাথে চুক্তি করার সম্ভাবনার কথা নিয়ে। তারপরে তারা বাল্টিক সাগর পাড়ি দিয়ে সুইডেনে যেতে পারে এবং ফিনল্যান্ড হয়ে রাশিয়া যেতে পারে। বিনিময়ে, মার্টোভ প্রস্তাব করেছিলেন, তারা জার্মান যুদ্ধবন্দীদের মুক্তির জন্য রাশিয়ায় আবেদন করার অঙ্গীকার দিতে পারে।

লেনিন ধারণাটি ধরে ফেললেন। তিনি তীব্রভাবে সচেতন ছিলেন যে রাশিয়ান উচ্ছৃঙ্খলতাবাদীরা জার্মানির মাধ্যমে ফিরে আসা যে কাউকে তথাকথিত ‘শত্রু’ এর কাছ থেকে সহায়তা গ্রহণ করেছে বলে ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা করবে। তাই তিনি জোর দিয়েছিলেন যে তার যাত্রাপথের শর্তাবলী যেন স্বচ্ছ হয় এবং বিপ্লবী নীতির সাথে যেন কোন আপস জড়িত না থাকে।

জুরিখে জার্মান দূতাবাসের সাথে শর্তাবলী নিয়ে সুইস মার্কসবাদী ফ্রিটজ প্লাটেন আলোচনা করেন।

ক্রুপস্কায়ার বর্ণনা অনুসারে সেগুলি ছিল:

* যে রাশিয়ান নির্বাসিতদের জার্মানির মধ্য দিয়ে যেতে দিতে হবে যুদ্ধে তাদের অবস্থান যাই থাকুক না।

* প্লাটেনের অনুমতি ছাড়া নির্বাসিতদের কেউই বহনকারী ট্রেনের বগিতে প্রবেশ করতে পারবে না।

* নির্বাসিতদের লাগেজ তল্লাশি বা তাদের পাসপোর্ট পরিদর্শন করা হবে না।

* নির্বাসিতরা রাশিয়ায় অনুরূপ সংখ্যক জার্মান এবং অস্ট্রিয়ান বন্দীদের মুক্তির জন্য আন্দোলন করার উদ্যোগ নেবে। [৮]

তথাকথিত ‘সিল করা ট্রেন’ লেনিন এবং ক্রুপস্কায়া, ইনেসা আরমান্ড এবং গ্রিগরি জিনোভিয়েভের মতো বলশেভিক নেতা সহ অন্যান্য ২৯ জনকে নিয়ে ২৭শে মার্চ জুরিখ ছেড়ে যান।

৩১শে মার্চ, বাল্টিক অতিক্রম করার পরে, তারা সুইডেনে পৌঁছেছিল। সেখান থেকে তারা ফিনল্যান্ড পার হয়ে পেট্রোগ্রাডের জন্য ট্রেন ধরে। ক্রুপস্কায়া স্মরণ করেছিলেন যে লেনিন ‘আমরা পৌছলে গ্রেপ্তার করা হবে কিনা জিজ্ঞাসা করেছিলেন।’ তিনি লিখেছেন, তার কমরেডরা, ‘হেসেছিলেন।’

লেনিন ১৯১৭ সালের ৩রা এপ্রিল সন্ধ্যায় পেট্রোগ্রাদের ফিনল্যান্ড স্টেশনে পৌঁছান।

গ্রেপ্তার হওয়া দূরের কথা, হাজার হাজার বলশেভিকদের- সাথে সংযুক্ত শ্রমিকরা এবং সৈন্যরা তাঁর সাথে দেখা করেছিলেন এবং গোলাপের তোড়া দিয়েছিলেন। তাকে ব্যক্তিগতভাবে সোভিয়েতদের পক্ষ থেকে মেনশেভিক আলেকজান্ডার চেখেইদজে অভ্যর্থনা জানিয়েছিলেন, যিনি তাকে সোভিয়েতের নির্বাহী কমিটির সমঝোতামূলক লাইনকে সমর্থন করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

পরিবর্তে, লেনিন, সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের জন্য একটি উত্সাহী ডাক দেন। ব্যক্তিগতভাবে, তিনি কামেনেভকে প্রতিরক্ষাবাদী, প্রাভদায় যুদ্ধ-পন্থী রাজনৈতিক অবস্থানের জন্য নিন্দা করেন।

লিও ট্রটস্কি যাকে ‘পার্টির পুনরুদ্ধার’ হিসাবে চিহ্নিত করেছিলেন।

পরের দিন, ৪ই এপ্রিল, লেনিন তার ‘এপ্রিল থিসিস’ পেট্রোগ্রাদ সোভিয়েতের শ্রমিক ও সৈনিকদের ডেপুটি বলশেভিক প্রতিনিধিদের সভায় পেশ করেন; এবং তারপর আবার বলশেভিক এবং প্রতিদ্বন্দ্বী মেনশেভিক প্রবণতা উভয়ের প্রতিনিধিদের সম্মিলিত বৈঠকে।

এপ্রিল থিসিসে কি ছিল? নথিটি ১০টি পয়েন্ট নিয়ে গঠিত। এটি অস্থায়ী সরকার এবং যুদ্ধের প্রতি লেনিনের মনোভাবের রূপরেখা দেয়; এবং একটি নতুন এবং উচ্চ রাষ্ট্রর ধারণা হিসাবে সোভিয়েতগুলির ঐতিহাসিক তাত্পর্য সম্পর্কে তার মূল্যায়ন। এটি রাশিয়ার অভ্যন্তরে শ্রমিক শ্রেণি এবং গ্রামীণ কৃষকদের পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য বস্তুনিষ্ঠভাবে প্রয়োজনীয় জরুরী অর্থনৈতিক ব্যবস্থাগুলির কথা বলেছিল; এবং এটি রাশিয়ান সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক লেবার পার্টি থেকে পার্টির নাম পরিবর্তন করে কমিউনিস্ট পার্টি করার আহ্বান জানায়।

সবশেষে, এবং সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, লেনিন জোর দিয়েছিলেন যে বলশেভিকদের অবশ্যই উদ্যোগ নিতে হবে এবং একটি নতুন বিপ্লবী আন্তর্জাতিক তৈরি করতে হবে, শুধুমাত্র দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকের সেই দলগুলির বিরুদ্ধে নয় যারা যুদ্ধে তাদের নিজস্ব বুর্জোয়াদের সমর্থন করে সমাজতন্ত্রের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিল, পরন্তু সব ‘মধ্যপন্থীদের’ বিরুদ্ধে যারা এই দলগুলো থেকে বিচ্ছিন্ন হতে অস্বীকার করেছিল।

আমি এখন এপ্রিল থিসিস পর্যালোচনা করব। [৯]

পয়েন্ট ১: যুদ্ধের বিষয়ে দলের অবস্থানে কোন পরিবর্তন নেই।

যুদ্ধের প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে, যেটি লভভ অ্যান্ড কোং-এর নতুন সরকারের অধীনে রাশিয়ার পক্ষ থেকে নিঃসন্দেহে সেই সরকারের পুঁজিবাদী প্রকৃতির কারণে একটি লুন্ঠনমূলক সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ রয়ে গেছে, ‘বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদ’ কে সামান্যতম ছাড়ও অনুমোদিত নয়…।

বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদে বিশ্বাসী জনসাধারণের সেই বৃহৎ অংশের নিঃসন্দেহে সততার পরিপ্রেক্ষিতে যারা যুদ্ধকে শুধুমাত্র একটি প্রয়োজন হিসেবে গ্রহণ করে, বিজয়ের উপায় হিসেবে নয়, এই বাস্তবতার পরিপ্রেক্ষিতে যে তারা বুর্জোয়াদের দ্বারা প্রতারিত হচ্ছে, বিশেষ পুঙ্খানুপুঙ্খতা, অধ্যবসায় এবং ধৈর্যের সাথে তাদেরকে তাঁদের ভুলের ব্যাখ্যা করা, পুঁজি এবং সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধের মধ্যে বিদ্যমান অবিচ্ছেদ্য সংযোগ ব্যাখ্যা করার জন্য এবং প্রমাণ করার জন্য যে পুঁজিকে উৎখাত করা ছাড়া সত্যিকারের গণতান্ত্রিক শান্তি, শান্তির মাধ্যমে যুদ্ধের সমাপ্তি অসম্ভব। হিংসতার দ্বারা শান্তি আরোপিত হয় না।

এই বিষয়ে, বুর্জোয়াদের হিংস্র উচ্চাকাঙ্ক্ষা এবং বিপ্লবী প্রতিরক্ষাবাদী অবস্থানে থাকা জনসাধারণের ‘সততার’ মধ্যে লেনিনের বৈপরীত্য ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এটি বলশেভিজমের সমগ্র উত্তরাধিকারের উপর আকর্ষণ করেছিল, যা লেনিনের কি করতে হবে? সেই সময় থেকে, এই উপলব্ধির উপর ভিত্তি করেই তৈরি হয়েছিল যে শ্রমিক শ্রেণীর স্বতঃস্ফূর্ত বুর্জোয়া চেতনার বিরুদ্ধে সমাজতান্ত্রিক চেতনা প্রবর্তন করতে হবে, আনতে হবে।

মার্কসবাদী দল, লেনিন এবং বলশেভিকরা সর্বদা জোর দিয়েছিল, শ্রমিক শ্রেণীর বুর্জোয়া চেতনার বিরোধিতা করতে হবে, সব অবস্থায়, এবং তাদের বোঝাতে হবে, সমাজতান্ত্রিক দৃষ্টিকোণে তাদের জয়ী করতে ‘ধৈর্য সহকারে ব্যাখ্যা করতে হবে।’ রাজনৈতিকভাবে-উন্নত শ্রমিকদের মধ্যে, যারা কয়েক দশক ধরে বলশেভিকদের দ্বারা শিক্ষিত এবং প্রভাবিত হয়েছিলেন, বিদ্যমান অনুভূতির সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য তীব্র চাপের যে পরিস্থিতি, তা গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

লেনিন বলশেভিক ক্যাডারদের বলছিলেন, বর্তমানে পার্টি সংখ্যালঘু থাকলেও তাতে কিছু যায় আসে না। কাজ ছিল সত্য বলা। শ্রেণী সংগ্রামের যুক্তি দেখতে পাবে কেরেনস্কি এবং মেনশেভিকরা তাদের প্রতিবিপ্লবী চরিত্রকে উন্মোচিত করবে। গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ে, বস্তুনিষ্ঠ উন্নয়নের সাথে পার্টির কর্মসূচীর মিলন বলশেভিকদের সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের দৃষ্টিভঙ্গিতে শ্রমিক শ্রেণীর জনগণকে জয় করতে সক্ষম করবে।

পয়েন্ট 2: সর্বোপরি লিও ট্রটস্কির সাথে যুক্ত ‘নিরবচ্ছিন্ন’ বা ‘স্থায়ী বিপ্লব’ তত্ত্বকে লেনিনের আলিঙ্গন।

রাশিয়ার বর্তমান পরিস্থিতির সুনির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য হল দেশটি বিপ্লবের প্রথম পর্যায় থেকে অতিক্রম করছে—যা সর্বহারা শ্রেণীর অপর্যাপ্ত শ্রেণী-চেতনা ও সংগঠনের কারণে, বুর্জোয়াদের হাতে ক্ষমতা অর্পণ করেছে—তার দ্বিতীয় পর্যায়, যাকে অবশ্যই সর্বহারা এবং কৃষকদের দরিদ্রতম অংশের হাতে ক্ষমতা দিতে হবে।

লেনিন, ট্রটস্কির বিরুদ্ধে, যুক্তি দিয়েছিলেন যে রাশিয়ার অর্থনৈতিক ও সামাজিক পশ্চাদপদতা শ্রমিক শ্রেণীর একটি শ্রমিক সরকার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে উদ্দেশ্যমূলক বাধা ছিল – সর্বহারা শ্রেণীর একনায়কত্ব। জনসংখ্যার সিংহভাগ, বিশাল গ্রামীণ কৃষক, একটি পেটি-বুর্জোয়া শ্রেণী ছিল এবং তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা ছিল শুধুমাত্র ভূমি সংস্কার এবং গণতান্ত্রিক অধিকারের জন্য। সমাজতন্ত্রে এর কোনো অপরিহার্য শ্রেণি স্বার্থ ছিল না।

তাই লেনিন রাশিয়ায় এক ধরনের মধ্যস্থতাকারী শাসন প্রতিষ্ঠার তত্ত্ব দিয়েছিলেন-একটি ‘সর্বহারা এবং কৃষকদের গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’-যেখানে শ্রমিক সমাজতান্ত্রিক আন্দোলন সবচেয়ে উগ্র কৃষক-ভিত্তিক দলগুলির সাথে জোটবদ্ধ হয়ে কাজ করবে, যাতে করে ভূমি সংস্কার এবং গণতন্ত্রের সম্প্রসারণ, সম্ভাব্য সর্বাধিক পরিমাণে বাস্তবায়ন করা যায়। এটি দেশের সবচেয়ে দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়ন, শ্রমিক শ্রেণীর সম্প্রসারণ এবং সমাজতান্ত্রিক পদক্ষেপের ভবিষ্যত বাস্তবায়নের জন্য সর্বোত্তম অবস্থার সৃষ্টি করবে।

লেনিন যার উত্তর দেননি তা হল এই ধরনের ‘গণতান্ত্রিক একনায়কত্বে’ কোন শ্রেণী, এবং সেইজন্য কোন স্বার্থগুলি আধিপত্য বিস্তার করবে এবং সেই কারণে পুঁজিবাদী শ্রেণী এবং শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে সংঘর্ষের অনিবার্য বিস্ফোরণে এটি কীভাবে প্রতিক্রিয়া জানাবে।

১৯১৭ সালের এপ্রিলে, লেনিন একটি শ্রমিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য স্পষ্টভাবে বেরিয়ে এসেছিলেন, যা ভূমি সংস্কার এবং গণতন্ত্রকে সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়নের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠ কৃষকের আনুগত্যকে জয় করবে এবং বজায় রাখবে।

রাশিয়া, বিচ্ছিন্নভাবে নেওয়া, অবশ্যই অর্থনৈতিক এবং সামাজিক অনগ্রসরতার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল। তবে, বিশ্ব পরিমণ্ডলে, লেনিন যেমন মূল্যায়ন করেছিলেন, সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ ইঙ্গিত দেয় যে সমাজতন্ত্রের জন্য বস্তুনিষ্ঠ অবস্থা-একটি সমন্বিত বিশ্ব অর্থনীতি-সম্পূর্ণ পরিপক্ক হয়েছে। রাশিয়ার শ্রমিক শ্রেণীর কাজ ছিল ক্ষমতা গ্রহণের সম্ভাবনাকে দখল করা এবং বিশ্ব বিপ্লবের কারণকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য ব্যবহার করা। আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক পরিকল্পনার উন্নয়নের অংশ হিসেবে রাশিয়ার উন্নয়ন ঘটবে।

বলশেভিক পার্টির মধ্যে বিতর্কে, এই অবস্থানের জন্য লেনিনকে বৈধভাবে ‘ট্রটস্কিবাদ’ এর জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছিল। এর সমস্ত মৌলিক বিষয়গুলিতে, এপ্রিল থিসিসের লাইনটি ট্রটস্কির স্থায়ী বিপ্লবের তত্ত্বের সাথে মিলিত হয়েছিল।

পয়েন্ট 3: অস্থায়ী সরকারকে কোন সমর্থন নয়। সোভিয়েত নেতৃত্ব এবং বলশেভিক পার্টির কামেনেভ-স্টালিন উপদল উভয়ের প্রতিই এক নিন্দনীয় তিরস্কারে, এপ্রিল থিসিস স্পষ্টভাবে ঘোষণা করেছিল:

অস্থায়ী সরকারকে কোন সমর্থন নয়; এর সমস্ত প্রতিশ্রুতির সম্পূর্ণ মিথ্যাতা স্পষ্ট করা উচিত, বিশেষ করে যেগুলি সংযুক্তির সাথে সম্পর্কিত।

এই সরকার, পুঁজিপতিদের সরকার, সাম্রাজ্যবাদী সরকার থেকে বিরত থাকা উচিত, বিভ্রান্তকর-প্রজনন ‘চাহিদার’ প্রকাশ অননুমোদিত, ।

পয়েন্ট 4: শক্তির ভারসাম্য এবং সোভিয়েতদের তাত্পর্যের একটি উদ্দেশ্যমূলক মূল্যায়ন।

এই সত্যের স্বীকৃতি যে বেশিরভাগ সোভিয়েত শ্রমিক প্রতিনিধিদের মধ্যে আমাদের পার্টি সংখ্যালঘু রয়েছে, এখন পর্যন্ত একটি ছোট সংখ্যালঘু, জনপ্রিয় সমাজতন্ত্রী এবং সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবী থেকে শুরু করে সমস্ত পেটি-বুর্জোয়া সুবিধাবাদী উপাদানগুলির একটি ব্লকের বিপরীতে। সাংগঠনিক কমিটি (Chkheidze, Tsereteli ইত্যাদি), Steklov, ইত্যাদি যারা বুর্জোয়াদের প্রভাবের কাছে নতি স্বীকার করেছে এবং সেই প্রভাব সর্বহারা শ্রেণীর মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে।

জনসাধারণকে অবশ্যই দেখাতে হবে যে শ্রমিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতগুলিই বিপ্লবী সরকারের একমাত্র সম্ভাব্য রূপ, এবং তাই আমাদের কাজ হল, যতক্ষণ এই সরকার বুর্জোয়াদের প্রভাবের কাছে নতি স্বীকার করে, একটি ধৈর্যশীল, পদ্ধতিগত, এবং তাদের কৌশলের ত্রুটিগুলির ক্রমাগত ব্যাখ্যা, বিশেষ করে জনসাধারণের ব্যবহারিক প্রয়োজনের সাথে অভিযোজিত একটি ব্যাখ্যা।

যতদিন আমরা সংখ্যালঘুতে থাকি ততদিন আমরা ভুলের সমালোচনা ও প্রকাশের কাজ চালিয়ে যাই এবং একই সাথে আমরা পুরো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা শ্রমিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েতদের কাছে হস্তান্তরের প্রয়োজনীয়তা প্রচার করি, যাতে জনগণ তাদের অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে ভুলগুলি কাটিয়ে উঠতে পারে।

এমন একটি সংগঠণ যেখানে অবস্থান প্রবল হয়ে উঠছিল যে অস্থায়ী সরকারকে সমালোচনামূলক সমর্থন দিতে হবে কারণ ‘সর্বহারা এবং কৃষকদের গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ প্রতিষ্ঠা করার শর্ত এখনও বিদ্যমান নয়, লেনিনের এই বিবৃতিগুলি ছিল, যেমন অধ্যাপক আলেকজান্ডার রবিনোভিচ লিখেছেন, ‘একটি বিস্ফোরক প্রভাব।’

লেনিন কেবলমাত্র সোভিয়েতদের হাতে ক্ষমতা তুলে দিতেই অগ্রসর হননি, সাথে সোভিয়েত ক্ষমতার জন্য সংগ্রাম কেবল বলশেভিকরাই গড়ে তুলতে পারে, অন্য সব রাজনৈতিক প্রবণতার বিরুদ্ধে এটাও বলেছিলেন।

পয়েন্ট 5: সোভিয়েত একটি রাষ্ট্রের উচ্চতম অবস্থা।

লেনিন স্পষ্ট করে পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের উৎখাত এবং একটি নতুন, উচ্চতর রাষ্ট্র ক্ষমতা, সর্বহারা শ্রেণীর একনায়কত্ব, কৃষকদের দরিদ্র অংশগুলিকে নেতৃত্ব দেওয়ার পক্ষে কথা বলছিলেন, এপ্রিল থিসিসের পঞ্চম পয়েন্ট ঘোষণা করেছিল:

সংসদীয় প্রজাতন্ত্র নয়—শ্রমিকদের ডেপুটিদের সোভিয়েত থেকে সংসদীয় প্রজাতন্ত্রে ফিরে আসা একটি পশ্চাদপসরণমূলক পদক্ষেপ হবে—পরন্তু সারা দেশে শ্রমিকদের, কৃষি শ্রমিকদের এবং কৃষকদের ডেপুটিদের সোভিয়েতদের প্রজাতন্ত্র, ওপর থেকে নীচে পর্যন্ত,

পুলিশ, সেনাবাহিনী ও আমলাতন্ত্রের বিলুপ্তি।

সমস্ত কর্মকর্তার বেতন, যাদের সকলেই যে কোনো সময় নির্বাচনী এবং স্থানচ্যুতযোগ্য, একজন যোগ্য শ্রমিকের গড় মজুরির থেকে বেশি হবে না।

এর পরে আরও কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছিল যাতে ছিল বিশাল জমির মালিকদের খরচে, ভূমি সংস্কারের সবচেয়ে আমূল বাস্তবায়নের রূপরেখা, কৃষকদের সমর্থন জয় করার জন্য, এবং সোভিয়েতগুলির মাধ্যমে শ্রমিক শ্রেণীর উৎপাদন ও বন্টন, অর্থের উপর নিয়ন্ত্রণ, পুঁজিপতি শ্রেণীর খরচে।

৬ নং দফায় কৃষকদের আশা-আকাঙ্খা ও দাবি পূরণের জন্য জমি জাতীয়করণ এবং ভূমি মালিকদের বৃহৎ সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

পয়েন্ট 7 ব্যাঙ্কগুলিকে একত্রিত করে একটি একক জাতীয় ব্যাঙ্কে গড়ে তোলার ডাক দেওয়া হয়েছে যা সোভিয়েত দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে।

পয়েন্ট 8 উত্পাদন এবং বিতরণের উপর শ্রমিকদের নিয়ন্ত্রণের ডাক দেওয়া হয়েছে।

পয়েন্ট 9 সোভিয়েতে ক্ষমতার জন্য সংগ্রামের সাথে সামঞ্জস রেখে কর্মসূচী আনতে এবং পার্টির নাম, রাশিয়ান সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক লেবার পার্টি থেকে কমিউনিস্ট পার্টিতে পরিবর্তন করার জন্য একটি পার্টি কংগ্রেস করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পয়েন্ট 10: একটি নতুন আন্তর্জাতিক গঠণ

এতে সহজভাবে বলা হয়েছে: ‘আমাদের অবশ্যই একটি বিপ্লবী আন্তর্জাতিক গঠনের উদ্যোগ নিতে হবে, একটি আন্তর্জাতিক যা সামাজিক-শৃঙ্খলবাদীদের বিরুদ্ধে এবং ‘মধ্যপন্থা’-এর বিরুদ্ধে।’

লেনিন দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকে ‘মধ্যপন্থা’কে ‘প্রবণতা’ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেছিলেন ‘যা chauvinists (=’উগ্র জাতীয়তাবাদী’) এবং আন্তর্জাতিকবাদীদের মধ্যে শূন্যতা সৃষ্টি করে।’ তিনি এর প্রতিনিধিদের মধ্যে জার্মানির কাউতস্কি অ্যান্ড কোং, ফ্রান্সের লংগুয়েট অ্যান্ড কোং, ইতালির তুরাতি অ্যান্ড কোং, ব্রিটেনের ম্যাকডোনাল্ড অ্যান্ড কোং, এবং সবচেয়ে বিস্ফোরকভাবে রাশিয়ায় চেখেইডজে অ্যান্ড কোং-এর নাম দিয়েছেন-অর্থাৎ মেনশেভিকরা যাদের সঙ্গে বলশেভিক কমিটি ইতিমধ্যেই আলোচনায় নিয়োজিত ছিল, এবং যাদের সাথে, মাত্র কয়েকদিন আগে, স্ট্যালিন একটি ঐক্যবদ্ধ সংগঠন পুনঃগঠনের পক্ষে ছিলেন।

এপ্রিল থিসিস শুনে বলশেভিকদের ধাক্কা মেনশেভিক সোভিয়েত ডেপুটি যারা এটি শুনেছিল তাদের প্রতিক্রিয়ার তুলনায় ফ্যাকাশে হয়ে গিয়েছিল। মেনশেভিক সুখানভ যেমন তার স্মৃতিচারণে স্মরণ করেছেন, লেনিনের প্রতিবেদনটিকে ‘একজন পাগলের উন্মাদনা’ এবং ‘আদিম নৈরাজ্যবাদ’ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছিল। মেনশেভিক নেতা স্কোবেলেভ লেনিনকে ‘আন্দোলনের সারির বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা একজন’ বলে ঘোষণা করেছিলেন। [১০]

বলশেভিক পার্টির নেতৃত্বের মধ্যে লেনিন তাৎক্ষণিক সমর্থন পাননি, তবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন না এমণ একেবারেই নয়। রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে তার হস্তক্ষেপ একটি সিদ্ধান্তমূলক প্রভাব ফেলেছিল।

৬ই এপ্রিল, বলশেভিক কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে কামেনেভ এবং স্ট্যালিন উভয়েই লেনিনের বিরোধিতা করেছিলেন।

৭ই এপ্রিল, থিসিসগুলি প্রাভদা’তে প্রকাশিত হয়েছিল, এই ফুট নোটের সাথে যে এটি শুধুমাত্র লেনিনের দৃষ্টিভঙ্গির প্রতিনিধিত্ব করেছে।

যদিও দলটির মধ্যে তুমুল আলোচনা ও পুনর্গঠন চলছে।

একই দিনে, ৭ই এপ্রিল, সোভিয়েত কার্যনির্বাহী কমিটিতে, ১১জন বলশেভিক প্রতিনিধি এবং অন্য তিনজন, অস্থায়ী সরকারের জন্য ‘সমালোচনামূলক সমর্থন’ অবস্থান থেকে সরে আসেন এবং একটি মেনশেভিক/এসআর সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ‘না’ ভোট দেন যা সোভিয়েতের অনুমোদন দেয় যুদ্ধের ধারাবাহিকতার অর্থায়নে তথাকথিত ‘লিবার্টি লোন’ এর জন্য।

৮ই এপ্রিল, কামেনেভ, প্রাভদা সম্পাদকদের পক্ষে, এপ্রিল থিসিসকে চ্যালেঞ্জ করার চেষ্টা করেছিলেন। তিনি লেখেন:

‘কমরেড লেনিনের সাধারণ পরিকল্পনার জন্য, এটি আমাদের কাছে অগ্রহণযোগ্য বলে মনে হয় এই ধারণার বশবর্তী হয়ে যে তাহলে বুর্জোয়া-গণতান্ত্রিক বিপ্লব সম্পন্ন হয়েছে, এবং এই বিপ্লবকে অবিলম্বে গড়ে তোলা একটি সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবে রূপান্তরিত করার জন্য।’ [১১]

৮ থেকে ১৩ই এপ্রিলের মধ্যে, লেনিন কৌশলের বিষয়ে তার চিঠি লিখেছিলেন, যা কামেনেভের অবস্থানের উত্তর দেয়। সেগুলি পেট্রোগ্রাদে বলশেভিক নেতৃত্বের মধ্যে প্রচারিত হয়েছিল এবং ২৪শে এপ্রিল থেকে ২৯শে এপ্রিল পর্যন্ত যে পার্টি সম্মেলন তার আগে একটি পুস্তিকা আকারে প্রকাশিত হয়।

লেটারস অন ট্যাকটিকস-এ, লেনিন বিশেষ করে এপ্রিল থিসিস দ্বারা ‘সর্বহারা এবং কৃষকদের গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ এই পূর্ববর্তী বলশেভিক দৃষ্টিকোণ পরিবর্তনের কথা বলেছেন, যা কামেনেভ এবং অন্যরা পার্টির মধ্যে রক্ষা করছিলেন।

ফেব্রুয়ারী বিপ্লব, লেনিন জোর দিয়েছিলেন, অস্থায়ী সরকারের আকারে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা বুর্জোয়াদের হাতে চলে গিয়েছিল। ‘এই পরিমাণে,’ তিনি কামেনেভের বিরুদ্ধে লিখেছেন, বুর্জোয়া-গণতান্ত্রিক বিপ্লব ‘সম্পূর্ণ’ হয়েছিল।

যান্ত্রিক পাল্টা যুক্তির বিরুদ্ধে বলশেভিক পার্টি সবসময় জোর দিয়েছিল যে বুর্জোয়া-গণতান্ত্রিক বিপ্লব শুধুমাত্র ‘গণতান্ত্রিক একনায়কত্বের মাধ্যমেই বাস্তবায়িত হতে পারে,’ লেনিন তার উত্তর দিয়েছিলেন:

আমার উত্তর হল: বলশেভিক স্লোগান এবং ধারণাগুলি ইতিহাস দ্বারা নিশ্চিত করা হয়েছে; কিন্তু স্পষ্টতই জিনিসগুলি ভিন্নভাবে কাজ করেছে; এগুলি আরও আসল, আরও অদ্ভুত, যে কেউ যা আশা করতে পারে তার চেয়ে বেশি বৈচিত্র্যময়।

এই সত্যকে উপেক্ষা করা বা এড়িয়ে যাবার অর্থ হল সেই ‘পুরানো বলশেভিকদের’ অনুসরণ করা যারা ইতিমধ্যে একাধিকবার আমাদের পার্টির ইতিহাসে এত দুঃখজনক ভূমিকা পালন করেছে যে নতুনদের নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্যগুলি যা জীবন্ত বাস্তবতা তা অধ্যয়ন করার পরিবর্তে অজ্ঞানভাবে শেখা সূত্রগুলি পুনরাবৃত্তি করে।

‘সর্বহারা এবং কৃষকদের বিপ্লবী-গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ ইতিমধ্যেই বাস্তবে পরিণত হয়েছে (একটি নির্দিষ্ট আকারে এবং একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে) রাশিয়ান বিপ্লবে, এই ‘সূত্র’ অনুযায়ী শুধুমাত্র শ্রেণীগুলির সম্পর্ককে কল্পনা করে, এবং এই সম্পর্ক বাস্তবায়ন ও সহযোগিতার জন্য একটি সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান নয়। ‘শ্রমিক এবং সৈনিকদের ডেপুটিদের সোভিয়েত’ – সেখানে আপনি ‘সর্বহারা এবং কৃষকদের বিপ্লবী-গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ ইতিমধ্যেই সম্পন্ন করেছেন।

এই সূত্রটি ইতিমধ্যেই পুরানো। ঘটনাগুলি একে সূত্রের রাজ্য থেকে বাস্তবের রাজ্যে নিয়ে গেছে, একে মাংস ও হাড় দিয়ে পরিহিত করেছে, এটিকে শক্তপোক্ত করেছে এবং এর মাধ্যমে এটিকে সংশোধন করেছে। [১২]

থিসিসের পক্ষকে সমর্থনের জেদ যা বিপ্লবের পরবর্তী পর্যায় ছিল ‘সর্বহারা শ্রেণীর এবং কৃষকদের দরিদ্রতম অংশের হাতে ক্ষমতা অর্পণ করার সংগ্রাম,’ লেনিন স্পষ্টভাবে লিখেছেন:

যে ব্যক্তি এখন কেবলমাত্র ‘সর্বহারা এবং কৃষকদের বিপ্লবী গণতান্ত্রিক একনায়কত্বের’ কথা বলে সে সময়ের থেকে পিছনে আছে, ফলতঃ সে সর্বহারা শ্রেণীর সংগ্রামের বিরুদ্ধে পেটি বুর্জোয়াদের কাছে চলে গেছে; সেই ব্যক্তিকে ‘বলশেভিক’ প্রাক-বিপ্লবী প্রাচীন জিনিসপত্রের সংরক্ষণাগারে পাঠানো উচিত (এটিকে ‘পুরানো বলশেভিকদের সংরক্ষণাগার বলা যেতে পারে।) [১৩]

লেনিন, এই নথিএবং অনান্যতে, সোভিয়েতগুলিতে ‘একটি নির্দিষ্ট আকারে এবং একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে’ উপলব্ধি করা ‘গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ বলতে তিনি কী বোঝাতে চেয়েছিলেন তা স্পষ্টভাবে ব্যাখ্যা করেছেন।

ফেব্রুয়ারী বিপ্লবে উদার বুর্জোয়াদের কোন উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল না। এটি শ্রমিক শ্রেণীর দ্বারা সূচিত এবং তাঁদের নেতৃত্বে ছিল। এর বিজয়, অবশ্য কৃষক জনতাকে তাঁদের পক্ষে পাওয়ার উপর নির্ভরশীল ছিল, যা প্রকাশ করেছে, গ্রামাঞ্চলে বিদ্রোহের আকারে নয়, বরং কৃষকদের থেকে বাধ্যতামূলকভাবে আসা লাখ লাখ সৈন্যের জারবাদী স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে এবং সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তারা শান্তি প্রদানের জন্য সোভিয়েতদের দিকে তাকিয়েছিল।

সোভিয়েতের নেতৃত্ব শ্রমিক শ্রেণী এবং কৃষক সৈনিক জনতার হাতে যে ক্ষমতা অর্পণ করেছিল তা প্রয়োগ করতে অস্বীকার করছিল। পরিবর্তে, লেনিন যেমন লিখেছিলেন, এটি অস্থায়ী সরকারের প্রতি সমর্থনের মাধ্যমে ‘স্বেচ্ছায় বুর্জোয়াদের হাতে ক্ষমতা অর্পণ করে, স্বেচ্ছায় নিজেকে বুর্জোয়াদের একটি উপাঙ্গে পরিণত করে’।

বলশেভিকদের ধৈর্য সহকারে শ্রমিক শ্রেণীকে বোঝাতে হয়েছিল যে বিপ্লবকে তার প্রয়োজনীয় ‘দ্বিতীয় পর্যায়ে’ নিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে, সোভিয়েতগুলির দ্বারা পূর্ণ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণের মাধ্যমেই তার শ্রেণী স্বার্থকে এগিয়ে নেওয়া যেতে পারে।

সোভিয়েতগুলি, লেনিন লিখেছিলেন, “আরও কার্যকরভাবে, আরও কার্যত এবং আরও সঠিকভাবে সিদ্ধান্ত নেবে সমাজতন্ত্রের দিকে কী পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে এবং কীভাবে এই পদক্ষেপগুলি নেওয়া উচিত। একটি ব্যাঙ্কের উপর নিয়ন্ত্রণ, সমস্ত ব্যাঙ্ককে একীভূত করা, এখনও সমাজতন্ত্র নয়, তবে এটি সমাজতন্ত্রের দিকে একটি পদক্ষেপ… “এমন পদক্ষেপ নিতে কি বাধ্য করে? দুর্ভিক্ষ। অর্থনৈতিক বিশৃঙ্খলা। আসন্ন পতন। যুদ্ধের ভয়াবহতা। যুদ্ধের দ্বারা মানবজাতির উপর আঘাতের ভয়াবহতা।’ [১৪]

১০ই এপ্রিল, লেনিন বলশেভিক সম্মেলনের জন্য আমাদের বিপ্লবে সর্বহারা শ্রেণীর কাজ শিরোনামে তার খসড়া কর্মসূচি প্রকাশ করার জন্য জমা দেন। এটি সেপ্টেম্বরের আগে পর্যন্ত প্রকাশ্যে প্রকাশিত হয়নি, কিন্তু, তার চিঠির মতো, এটি বলশেভিক পার্টিতে প্রচারিত হয়েছিল এবং লেনিন পরে উল্লেখ করেছেন, একজন ‘মনোযোগী পাঠক লক্ষ্য করবেন যে আমার প্রচারপত্রটি প্রায়শই সম্মেলনের রেজুলেশনের মূল খসড়া হিসাবে কাজ করে’।

লেনিনের সংগৃহীত রচনাগুলির ২৪তম খণ্ডে এপ্রিল থিসিসের লাইনের পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে সম্মেলনের আগে তিনি যে নিবন্ধগুলি এবং মন্তব্যগুলি লিখেছিলেন তার সিরিজও রেকর্ড করা আছে।

আমি আমার বক্তৃতার শেষ অংশটি এপ্রিলের থিসিসের দুটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের উপর ব্যয় করতে চাই, যেগুলি লেনিন তার কৌশল সংক্রান্ত চিঠি এবং আমাদের বিপ্লবে সর্বহারা শ্রেণীর কাজ উভয়টিতেই কিছু বিশদভাবে ব্যাখ্যা করেছেন।

সেগুলি ছিল:

প্রথমত, সোভিয়েতগুলির তাৎপর্য এবং দ্বিতীয়ত, বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের লড়াইয়ে রাজনৈতিকভাবে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য একটি নতুন, তৃতীয় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা।

লেনিন প্যারিস কমিউনের বিশ্ব ঐতিহাসিক গুরুত্ব সম্পর্কে কার্ল মার্কস এবং ফ্রেডরিক এঙ্গেলসের লেখার ঐতিহ্যের মধ্যে সোভিয়েতগুলির মূল্যায়ন করেছিলেন, যার মাধ্যমে ১৮৭১ সালে সংক্ষিপ্ত দুই মাস ধরে শহরের শ্রমিক-শ্রেণীর জনগণ ফরাসি বুর্জোয়াদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ক্ষমতা দখল করে।

এর কৃতিত্ব এবং এর ভুল থেকে শিক্ষা উভয়েরই সমালোচনা করে, বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতারা কমিউনকে নতুন রাষ্ট্রের প্রথম উদাহরণ হিসেবে মূল্যায়ন করেছিলেন যা বুর্জোয়া সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টার বিরুদ্ধে শ্রমিক শ্রেণীর শাসনকে রক্ষা করবে। কমিউন ফর্ম একটি শ্রেণীহীন সমাজে রূপান্তরের নেতৃত্ব দেবে যেখানে একটি রাষ্ট্রের প্রয়োজন ছিল না-অর্থাৎ, এটি প্রথম ‘সর্বহারা শ্রেণীর একনায়কত্ব’ এর প্রতিনিধিত্ব করে।

মার্কসবাদ, লেনিন আমাদের বিপ্লবে সর্বহারা শ্রেণীর কর্ত্তব্য এতে জোর দিয়েছিলেন, ‘নৈরাজ্যবাদ থেকে পৃথক যে এটি একটি রাষ্ট্র এবং রাষ্ট্র ক্ষমতার প্রয়োজনকে সাধারণভাবে বিপ্লবের সময় এবং বিশেষ করে পুঁজিবাদ থেকে সমাজতন্ত্রে উত্তরণের সময়কে স্বীকৃতি দেয়।’

‘কমিউন টাইপ’ এর একটি রাষ্ট্র, তিনি অব্যাহত রেখেছিলেন, ‘রাষ্ট্রের ধরন যা ১৯০৫ এবং ১৯১৭ সালের রাশিয়ান বিপ্লব তৈরি করতে শুরু করেছিল।’ [১৫]

বলশেভিক পার্টির সামনে প্রশ্নটি ছিল শ্রমিক শ্রেণীকে সচেতন করা যে সোভিয়েতগুলি গঠন করেছিল তা সমাজতন্ত্র অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় নতুন, উচ্চতর, রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করে। কেবলমাত্র সোভিয়েতগুলির পুরানো রাষ্ট্রীয় আমলাতন্ত্রকে ভেঙে ফেলা বা তছনছ করে ফেলা, পুলিশের পুনঃপ্রতিষ্ঠা রোধ, সামরিক শাসনযন্ত্রের বিলুপ্তি এবং সংখ্যাগরিষ্ঠের স্বার্থে অর্থনৈতিক জীবন পুনর্গঠন নিশ্চিত করতে পারে, উতপাদনের উপায়গুলির জনস্বত্ব প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে।

এক কথায় যা আজ সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ শ্রমিকের সাথে অনুরণিত হবে, যারা সংসদীয় গণতন্ত্রের মুখোমুখি হচ্ছে যেটা সামরিক বা ফ্যাসিস্টিক শাসনের দিকে মোড় নেওয়াকে হেলাফেলা করছে এবং যারা তাদের সামরিক-পুলিশ-গোয়েন্দা ব্যাবস্থাপনা তৈরি করছে, লেনিন লিখেছেন:

সংসদীয় বুর্জোয়া প্রজাতন্ত্র থেকে রাজতন্ত্রে প্রত্যাবর্তন করা খুবই সহজ (ইতিহাস প্রমাণ করে) কারণ নিপীড়নের সমস্ত যন্ত্র-সেনাবাহিনী, পুলিশ এবং আমলাতন্ত্র-অক্ষত রয়েছে। কমিউন এবং সোভিয়েত সেই যন্ত্রগুলোকে চুরমার করে দিয়েছিল।

সংসদীয় বুর্জোয়া প্রজাতন্ত্র জনগণের স্বাধীন রাজনৈতিক জীবনকে, রাষ্ট্রের জীবনের গণতান্ত্রিক সংগঠনে তাদের প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ, নিচ থেকে উপরে বাধাগ্রস্ত ও শ্বাসরুদ্ধ করে। সোভিয়েতদের ক্ষেত্রে এর বিপরীত। [১৬]

পরবর্তীতে লেনিন পরের মাসগুলো তার স্মারক গ্রন্থ দ্য স্টেট এন্ড রেভোলিউশন লেখার জন্য উতসর্গ করবেন, শ্রমিক রাষ্ট্রের প্রশ্নটি পর্যালোচনা ও বিশদ বিবরণে তার প্রচুর সময় ব্যয় করবেন।

বিপ্লবের প্রথম পর্যায় পরিচালনা করে এবং সোভিয়েত তৈরি করার পরে, লেনিন জোর দিয়েছিলেন যে শ্রমিক শ্রেণী বুর্জোয়াদের ক্ষমতা গ্রহণের অনুমতি দিতে পারে না। এটিকে বিপ্লব চালিয়ে যেতে হবে।

এই প্রয়োজনীয়তা শুধুমাত্র রাশিয়ান অবস্থা থেকে নয়, সর্বোপরি বিশ্ব পরিস্থিতি থেকে উদ্ভূত হয়েছিল।

লেনিনের স্থায়ী বিপ্লবকে আলিঙ্গনের সংক্ষিপ্ত সারাংশে বলশেভিক পার্টির খসড়া কর্মসূচি ঘোষণা করে:

যুদ্ধ হল অর্ধশতাব্দী ধরে বিশ্ব পুঁজিবাদের বিকাশ এবং এর কোটি কোটি যোগসূত্র এবং সংযোগের ফসল। সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধ থেকে বেরিয়ে আসা এবং পুঁজির ক্ষমতাকে উৎখাত করা এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা সর্বহারা শ্রেণীর কাছে হস্তান্তর করা একটি গণতান্ত্রিক, অ-জবরদস্তিহীন শান্তিপূর্ণভাবে অর্জন করা অসম্ভব।

ফেব্রুয়ারী-মার্চ ১৯১৭ এর রাশিয়ান বিপ্লব ছিল সাম্রাজ্যবাদী যুদ্ধকে গৃহযুদ্ধে রূপান্তরের সূচনা। এই বিপ্লব যুদ্ধের অবসানের দিকে প্রথম পদক্ষেপ নিয়েছিল; কিন্তু যুদ্ধের সমাপ্তি নিশ্চিত করার জন্য দ্বিতীয় ধাপের প্রয়োজন, যথা, সর্বহারা শ্রেণীর কাছে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা হস্তান্তর। এটি হবে বিশ্বব্যাপী একটি ‘যুগান্তকারী সাফল্যর’ সূচনা, পুঁজিবাদী স্বার্থের মুখোমুখী একটি সাফল্য ; এবং শুধুমাত্র এই পথ ভেঙ্গেই সর্বহারা শ্রেণী মানবজাতিকে যুদ্ধের ভয়াবহতা থেকে রক্ষা করতে পারে এবং শান্তির আশীর্বাদ দান করতে পারে।

পুঁজিবাদের সামনে এটি সরাসরি এমন একটি ‘যুগান্তকারী সাফল্য’ যাতে রুশ বিপ্লব ইতিমধ্যেই শ্রমিক প্রতিনিধিদের সোভিয়েত তৈরি করে রাশিয়ান প্রলেতারিয়েতকে নিয়ে এসেছে। [১৭]

রুশ বিপ্লবের আন্তর্জাতিক বিষয়বস্তু, এবং ‘রাশিয়ায় শ্রমিক শ্রেণীর আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতা’ যেমন লেনিন বলেছিলেন, তার জেদের কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল যে বলশেভিকরা, নিজেদের নাম পরিবর্তন করবে কমিউনিস্ট পার্টি হিসাবে, অবিলম্বে তৃতীয় আন্তর্জাতিক গড়ে তুলবে।

লেনিন, আন্তর্জাতিকভাবে মধ্যপন্থী প্রবণতাকে তীব্রভাবে নিন্দা করেছিলেন যেটি দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকের বিশ্বাসঘাতকতার বিরোধিতা করার দাবি করেছিল, কিন্তু এই ধারণা প্রচার করেছিল যে সাম্রাজ্যবাদী বুর্জোয়াদের উপর চাপ দিয়ে শান্তি অর্জন করা যেতে পারে এবং যারা তাদের নিজস্ব শাসক শ্রেণীকে যুদ্ধতে সমর্থন করেছিল তাদের সাথে প্রকাশ্যে সম্পর্ক ছিন্ন করতে অস্বীকার করেছিল —যে প্রবণতাকে লেনিন সামাজিক অরাজকতাবাদী হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন।

মধ্যপন্থা, তিনি খসড়া কর্মসূচিতে লিখেছেন, “নিজের সরকারের বিরুদ্ধে বিপ্লবের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে বিশ্বাসী নয়; এটা বিপ্লব প্রচার করে না; এটি একটি সম্পূর্ণ হৃদয়গ্রাহী বিপ্লবী সংগ্রাম চালিয়ে যায় না…

তারা ছিল ‘কথায় বিপ্লবী এবং কাজে সংস্কারবাদী’ এবং, ‘কথায় আন্তর্জাতিকবাদী এবং কাজে সামাজিক-শৃঙ্খলবাদীদের সহযোগী।’

আন্তর্জাতিকতাবাদ এবং শ্রমিক শ্রেণীর প্রতিনিধিত্বকারী একমাত্র প্রবণতা, লেনিন ঘোষণা করেছিলেন যে যারা ১৯১৫ সালের জিমারওয়াল্ড যুদ্ধবিরোধী সম্মেলনে বাম সংখ্যালঘুদের দ্বারা অগ্রসর হওয়া অবস্থানগুলি মেনে চলে।

এপ্রিল থিসিসের পরে যে আলোচনা হয়েছিল তা হল মার্কসবাদ-বিরোধী অবস্থানের একটি স্পষ্ট খণ্ডন যে স্তালিনবাদী শাসনের আমলাতান্ত্রিক একনায়কত্ব বলশেভিজম থেকে জৈবিকভাবে উদ্ভূত হয়েছিল। লেনিন বলশেভিক পার্টিকে বোঝাতে পারেননি, আমলাতান্ত্রিক উপায়ে লক্ষ লক্ষ শ্রমিকদের ছেড়েই দিন। তার কোনো পরিচলনাকারী ছিল না, ভয় দেখানো ছিল না। তিনি তার ধারণার মাধ্যমে বুঝিয়েছিলেন।

বলশেভিক পার্টি যে লেনিন দ্বারা আধিপত্য একটি একচেটিয়া, চিন্তাহীন রাজনৈতিক মেশিন ছিল তা ২৪শে এপ্রিল থেকে ২৯শে এপ্রিলের বলশেভিক সম্মেলনের ফলাফল দ্বারা আরও স্পষ্টভাবে খণ্ডন করা হয়েছে। সমগ্র রাশিয়া থেকে প্রায় ১৫০ জন প্রতিনিধি জড়ো হয়েছিলেন, প্রতিনিধি ও বক্তা হিসাবে, রাশিয়ান বিপ্লবের ইতিহাসে ট্রটস্কি দ্বারা উদ্ধৃত পরিসংখ্যান, ৭৯,০০০ পার্টি সদস্য – শ্রমিক, সৈনিক, কৃষক, সেইসাথে বুদ্ধিজীবী, পেশাদার এবং শিল্পী। কেউ কেউ দীর্ঘদিনের বিপ্লবী ছিলেন, বেশিরভাগই কেবল কয়েক বছর বা এমনকি কয়েক মাস আগে পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন।

হাজার হাজার বলশেভিক সদস্যরা সম্মিলিতভাবে শ্রমিক শ্রেণীর অগ্রগামী প্রতিনিধিত্ব করত, একটি উন্নত স্তর যারা সমাজতান্ত্রিক চেতনায় আচ্ছন্ন ছিল।

এপ্রিলের থিসিসে অস্থায়ী সরকার, যুদ্ধের প্রতি মনোভাব এবং সোভিয়েতদের দ্বারা ক্ষমতা গ্রহণের দৃষ্টিভঙ্গি, এপ্রিলের বলশেভিক সম্মেলনে স্পষ্টভাবে সংখ্যাগরিষ্ঠদের সমর্থন লাভ করে। তৃতীয় আন্তর্জাতিকের অবিলম্বে প্রতিষ্ঠার জন্য লেনিনের আহ্বান সম্বলিত একটি প্রস্তাব অবশ্য পরাজিত হয়েছিল। শুধুমাত্র রাশিয়ার মেনশেভিকদের সাথে নয়, আন্তর্জাতিকভাবে তাদের মধ্যপন্থী প্রতিপক্ষের সাথে প্রয়োজনীয় ভাঙ্গনের আগে আরও কয়েক মাস আলোচনার প্রয়োজন, তাতে সম্পূর্ণরূপে সহমত পোষণ করে ।

সম্মেলন থেকে, প্রতিনিধিরা তাদের দলীয় এলাকায় ফিরে আসেন এবং ‘সোভিয়েতের হাতে সম্পূর্ণ ক্ষমতা’ এই লাইনের জন্য লড়াই করেন।

১৯৪০ সালে, শ্রমিক শ্রেণী, বিপ্লবী পার্টি এবং বিপ্লবী আন্দোলনের নেতৃত্বের মধ্যে জটিল সম্পর্ক প্রতিফলন করে, ট্রটস্কি নিম্নলিখিত লেখা লিখেছিলেন:

ফেব্রুয়ারী বা মার্চ ১৯১৭ সালে রাশিয়ান প্রলেতারিয়েতের পরিপক্কতার একটি বিশাল ফ্যাক্টর ছিলেন লেনিন। তিনি আকাশ থেকে পড়েননি। তিনি শ্রমিক শ্রেণীর বিপ্লবী ঐতিহ্যকে মূর্ত করে তুলেছিলেন। লেনিনের স্লোগানগুলিকে জনসাধারণের কাছে পৌছে দেবার জন্য সেখানে ক্যাডার থাকতে হবে, যদিও শুরুতে সংখ্যাগতভাবে ছোট ছিল; নেতৃত্বের প্রতি ক্যাডারদের আস্থা থাকতে হবে, অতীতের পুরো অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে একটি আস্থা। এই উপাদানগুলিকে নিজের গণনা থেকে বাতিল করার অর্থ হল জীবন্ত বিপ্লবকে উপেক্ষা করা, এটির পরিবর্তে একটি বিমূর্ততা, ‘বাহিনীর সম্পর্ক’, কারণ বিপ্লবের বিকাশ সুনির্দিষ্টভাবে এটি নিয়ে গঠিত, যে শক্তির সম্পর্ক অবিরাম এবং দ্রুত পরিবর্তিত হতে থাকে, প্রলেতারিয়েতের চেতনার পরিবর্তনের প্রভাবে, অগ্রসরদের প্রতি পশ্চাৎপদ স্তরের আকর্ষণ, শ্রেণির নিজস্ব শক্তিতে ক্রমবর্ধমানতার আশ্বাস। এই প্রক্রিয়ার অত্যাবশ্যক মূল স্প্রিং হল পার্টি, ঠিক যেমন পার্টির মেকানিজমের গুরুত্বপূর্ণ মূল স্প্রিং হল এর নেতৃত্ব। একটি বিপ্লবী যুগে নেতৃত্বের ভূমিকা এবং দায়িত্ব বিশাল। [১৮]

একই নথিতে, ট্রটস্কিও লিখেছেন:

৩রা এপ্রিল, ১৯১৭ পেট্রোগ্রাদে লেনিনের আগমন বলশেভিক পার্টিকে সময়মতো পরিণত করে এবং পার্টিকে বিপ্লবের বিজয়ের দিকে নিয়ে যেতে সক্ষম করে। আমাদের পরম বিজ্ঞরা বলতে পারেন যে লেনিন যদি ১৯১৭ সালের শুরুতে বিদেশে মারা যেতেন তবে অক্টোবর বিপ্লব কি ‘ঠিক একইভাবে’ ঘটত। কিন্তু এটা এমণ নয়। লেনিন ঐতিহাসিক প্রক্রিয়ার একটি জীবন্ত উপাদানের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। তিনি প্রলেতারিয়েতের সবচেয়ে সক্রিয় অংশের অভিজ্ঞতা এবং প্রত্যক্ষতাকে ব্যক্ত করেছেন। বিপ্লবের ময়দানে তার সময়মত উপস্থিতি প্রয়োজন ছিল ভ্যানগার্ডকে একত্রিত করার জন্য এবং শ্রমিক শ্রেণী ও কৃষক জনগণকে একত্রিত করার সুযোগ দেওয়ার জন্য। ঐতিহাসিক মোড়ের গুরুত্বপূর্ণ মুহুর্তে রাজনৈতিক নেতৃত্ব যুদ্ধের সংকটময় মুহূর্তে প্রধান কমান্ডের ভূমিকার মতোই নির্ধারক একটি ফ্যাক্টর হয়ে উঠতে পারে। ইতিহাস একটি স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া নয়। নইলে নেতারা কেন? পার্টি কেন? কেন প্রোগ্রাম? কেন তাত্ত্বিক সংগ্রাম? [১৯]

ট্রটস্কির প্রশ্ন: কেন নেতারা?, কেন দলগুলি?, কেন কর্মসূচি?, কেন তাত্ত্বিক সংগ্রাম?, এপ্রিল থিসিসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফলাফলের দ্বারা এগুলি পরিস্কার করা হয়েছে। এটি সেই নথি যা, ১৪ বছরের রাজনৈতিক পার্থক্যের পরে, ভ্লাদিমির লেনিন এবং লিও ট্রটস্কিকে একত্রিত করেছিল।

ট্রটস্কি, ১৯১৭ সালের এপ্রিলে, কানাডায় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের দ্বারা তাকে আটক করা হয়েছিল, নিউইয়র্কে জোরপূর্বক নির্বাসন থেকে রাশিয়ায় তার প্রত্যাবর্তন ঠেকাতে। পেট্রোগ্রাদ শ্রমিক শ্রেণী এবং বলশেভিকদের অবিরাম দাবির কারণে, অস্থায়ী সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিলিউকভ অনিচ্ছুক থাকা সত্বেও ব্রিটেনের কাছে ট্রটস্কিকে মুক্তি দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছিলেন।

ট্রটস্কি ব্রিটিশ বন্দীদশা থেকে মুক্ত হন এবং ১৬ই এপ্রিল, ১৯১৭-এ ইউরোপের উদ্দেশ্যে একটি জাহাজে চড়েন।

এপ্রিলের সমস্ত ঘটনা যা আমি পর্যালোচনা করেছি, সেই সময় ট্রটস্কি হয় জেল শিবিরে বা সমুদ্র যাত্রায় এবং সমস্ত যোগাযোগের অভাব ছিল। অবশেষে জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের ৪ঠা মে তিনি রাশিয়ায় পৌঁছন। তিনি তখনও এপ্রিল থিসিস বা পরবর্তী কোনো নথি পড়েননি।

পরে, ট্রটস্কি লেনিনের জীবনীতে লিখবেন:

পিটার্সবার্গে [পেট্রোগ্রাদ] আসার পর দ্বিতীয় বা তৃতীয় দিন আমি লেনিনের এপ্রিল থিসিসের সাথে পরিচিত হয়েছিলাম। এটি ঠিক সেটাই যা বিপ্লবের জন্য প্রয়োজন ছিল…

[লেনিন এবং ট্রটস্কির মধ্যে] প্রথম বৈঠকটি অবশ্য মে মাসের ৫ বা ৬ তারিখে হয়েছিল। আমি লেনিনকে বলেছিলাম যে তার এপ্রিল থিসিস এবং তার আগমনের পর থেকে পার্টি যে সমস্ত কোর্স গ্রহণ করেছিল তার থেকে কিছুই আমাকে আলাদা করেনি…’ [২০]

ট্রটস্কির বিবরণ থেকে, পরবর্তী আলোচনাটি শুধুমাত্র কৌশলগত ইস্যুকে কেন্দ্র করে যে কখন তিনি প্রকাশ্যে বলশেভিকদের সাথে যোগ দেবেন। উল্লেখযোগ্য বিপ্লবীরা এবং প্রায় ৩০০০ শ্রমিক যারা আন্তঃজেলা কমিটির অন্তর্গত। এরা তারাই ছিল যারা মেনশেভিক সংখ্যাগরিষ্ঠের বিরোধিতা করেছিল, কিন্তু বলশেভিকদের সমর্থন করেনি, ট্রটস্কির স্থায়ী বিপ্লবের তত্ত্ব এবং ‘সর্বহারা ও কৃষকদের গণতান্ত্রিক একনায়কত্ব’ এর বলশেভিক দৃষ্টিভঙ্গির দীর্ঘস্থায়ী সমালোচনার সাথে একমত হওয়ার কারণে।

ট্রটস্কি বিশ্বাস করতেন যে তিনি আন্তঃজেলা কমিটির সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশকে বলশেভিক পার্টিতে যোগদান করানোর জন্য রাজি করাতে সর্বোত্তম অবস্থানে ছিলেন। আর সেটাই ঘটেছে। ১৯১৭ সালের আগস্টে আন্তঃজেলা কমিটি আনুষ্ঠানিকভাবে বলশেভিকদের সাথে একত্রিত হয়।

সর্বোপরি লেনিন এবং ট্রটস্কির নেতৃত্বে রাজনৈতিকভাবে চাঙ্গা হয় বলশেভিক পার্টি, রাশিয়ান শ্রমিক শ্রেণীর অপ্রতিরোধ্য সংখ্যাগরিষ্ঠের আনুগত্য অর্জন করে, যা সৈন্য এবং গ্রামীণ কৃষকদের একটি বিশাল জনগোষ্ঠীর দ্বারা সমর্থিত প্রথম শ্রমিক রাষ্ট্র এই স্পষ্ট পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠা হয়েছিল যে রুশ বিপ্লব বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের প্রথম প্রচেষ্টা।

লেনিন এবং ট্রটস্কির একত্র হওয়াকে আধুনিক ইতিহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাগুলির মধ্যে স্থান দিতে হবে। এটিতে দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে যা আজকের সমস্ত বিপ্লবীদের বুঝতে হবে।

বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের পরিপ্রেক্ষিতে লেনিনের তার পার্টিকে পুনরায় সজ্জিত করার প্রয়োজন ছিল। যদি বলশেভিকরা লেনিনের এপ্রিল থিসিসকে প্রত্যাখ্যান করত এবং অস্থায়ী সরকার এবং যুদ্ধের জন্য কামেনেভ-স্টালিনের ‘সমালোচনামূলক সমর্থন’ লাইনের সাথে অব্যাহত থাকত, তাহলে ট্রটস্কি তাদের সাথে যোগ দিতেন না।

ট্রটস্কির দূরদৃষ্টিসম্পন্ন চরিত্রের স্বীকৃতির কারণে, সুবিধাবাদের সঙ্গে কোনো আপস করা যাবে না বলে লেনিনের জোর দিয়ে একত্রিত হওয়াটা কম পূর্বাভাসিত ছিল না। এটাই আজকের প্রজন্মের বিপ্লবীদের সর্বোপরি আত্মীকরণ করতে হবে।

১৯১৫ সালের জিমারওয়াল্ড সম্মেলনের পর থেকে, লেনিন ট্রটস্কিকে সেই ‘মধ্যপন্থীদের’ একজন হিসাবে চিহ্নিত করেছিলেন যারা দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকের বিশ্বাসঘাতকতার তীব্র বিরোধিতা করে এবং যুদ্ধের বিরুদ্ধে একটি বিপ্লবী কর্মসূচির জন্য লড়াই করার সময়, প্রকাশ্যে ভেঙ্গে বেড়িয়ে আসার এবং একটি নতুন, তৃতীয় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানাননি।

লেনিন 1903 সাল থেকে ট্রটস্কির বিরুদ্ধে জোর দিয়েছিলেন যে সমস্ত সুবিধাবাদী, অর্থাৎ বুর্জোয়া প্রবণতা থেকে সম্পূর্ণভাবে সীমারেখা টানা শ্রমিক শ্রেণীর মধ্যে স্বাধীন, বিপ্লবী, সমাজতান্ত্রিক চেতনার বিকাশের জন্য অপরিহার্য। যুদ্ধের দ্বারা এই অবস্থানের ভিত্তিতে ট্রটস্কিকে জয়ী করা গিয়েছিল, স্থায়ী বিপ্লবের অপরিহার্য নীতির ভিত্তিতে আর কেউ নয় লেনিনকে জয় করা হয়।

রাশিয়ায় মেনশেভিক ‘মধ্যপন্থা’ এর বিবর্তন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং পশ্চিম ইউরোপে অনুরূপ গ্রুপিং, প্রকাশ্যে বুর্জোয়া, সাম্রাজ্যবাদী, যুদ্ধপন্থী প্রবণতা ট্রটস্কিকে ১৯০৩ সাল থেকে মেনশেভিকদের সাথে সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছেদ করার লেনিনের প্রচেষ্টার সম্পূর্ণ তাৎপর্য সম্পর্কে স্পষ্ট করে তুলেছিল।

লেনিন কয়েক মাস পরে বলবেন যে, ট্রটস্কি রাশিয়ায় ফিরে আসার পর মেনশেভিকদের সাথে একীকরণের যে কোনো সম্ভাবনা প্রত্যাখ্যান করার পরে এবং তৃতীয় আন্তর্জাতিকের প্রয়োজনীয়তার কথা বলার পরে, ‘এর চেয়ে ভাল বলশেভিক আর কেউ ছিল না।’ [২১]

লেনিন এবং ট্রটস্কি ১৪ বছর ধরে একটি তাত্ত্বিক যুদ্ধ করেছিলেন। ১৯১৭ সালে, তারা রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং পার্টির প্রকৃতি সম্পর্কে একটি সাধারণ বোঝাপড়ায় পৌঁছেছিল যা রাশিয়ান শ্রমিকশ্রেণীকে রাজনৈতিক ক্ষমতা নিজের হাতে নেওয়ার জন্য এবং বিশ্বের শ্রমিক শ্রেণীর জন্য এগিয়ে যাওয়ার পথ প্রদানের পক্ষে প্রয়োজনীয় ছিল।

এই কারণেই ১৯১৭ সালের রুশ বিপ্লব প্রথম এবং একমাত্র সফল সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব হিসাবে রয়ে গেছে।

ক্ষমতা গ্রহণের জন্য শ্রমিক শ্রেণীর দ্বারা অন্য কোন প্রচেষ্টা তুলনামূলকভাবে তৈরি বা বিকশিত হয়নি, সর্বপরি, স্টালিনবাদী শাসনযন্ত্রের রাজনৈতিকভাবে অপরাধমূলক ভূমিকার কারণে যেটি ১৯২০ দশকে শ্রমিকশ্রেণীর কাছ থেকে ক্ষমতা কেড়ে নিয়েছিল এবং তারপরে রাজনৈতিকভাবে শিক্ষিত বলশেভিক বুদ্ধিজীবী এবং শ্রমিকদের বিপুল সংখ্যক লোককে ধ্বংস করে দিয়েছিল ১৯৩০-এর দশকে।

রুশ বিপ্লবের শিক্ষা হল: প্রতিটি দেশে, শ্রমিক শ্রেণীর একটি বিশ্ব পার্টির শাখা প্রয়োজন, যেটি স্থায়ী বিপ্লবের তত্ত্ব এবং বিশ্ব সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের দৃষ্টিভঙ্গির উপর ভিত্তি করে হবে এবং নিজেকে সমস্ত বুর্জোয়া এবং মার্কসবাদ-বিরোধী প্রবণতা থেকে সীমারেখা টানতে ও পার্থক্য করার জন্য নিরলস সংগ্রাম পরিচালনা করবে।

চতুর্থ আন্তর্জাতিকের আন্তর্জাতিক কমিটি সেই বিশ্ব পার্টি, এবং এটি একাই একবিংশ শতাব্দীর বিপ্লবের জন্য শ্রমিক শ্রেণীকে প্রস্তুত করছে।

ধন্যবাদ.

#
সৈয়দ আমিরুজ্জামান
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক, সাংবাদিক ও কলামিস্ট;
বিশেষ প্রতিনিধি, সাপ্তাহিক নতুনকথা;
সম্পাদক, আরপি নিউজ;
সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, মৌলভীবাজার জেলা;
‘৯০-এর মহান গণঅভ্যুত্থানের সংগঠক ও সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, বাংলাদেশ ছাত্রমৈত্রী।
সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, বাংলাদেশ খেতমজুর ইউনিয়ন।
সাধারণ সম্পাদক, মাগুরছড়ার গ্যাস সম্পদ ও পরিবেশ ধ্বংসের ক্ষতিপূরণ আদায় জাতীয় কমিটি।
প্রাক্তন সভাপতি, বাংলাদেশ আইন ছাত্র ফেডারেশন।
মুঠোফোন: ০১৭১৬৫৯৯৫৮৯।
তথ্যসূত্র :
১.ভি. আই. লেনিন; সর্বহারা বিপ্লব ও দলদ্রোহী কাউৎস্কী; সেরাজুল আনোয়ার অনূদিত, গণপ্রকাশন, ঢাকা; ডিসেম্বর, ১৯৯০; পৃষ্ঠা-১২৭-১২৮।
২. First World War.com – Primary Documents – Lenin’s April Theses, April 1917
৩. দাশগুপ্ত, অমল (২০১৩)। “অক্টোবর সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবে”। কমরেড লেনিন (এনবিএ-র প্রথম সংস্করণ সংস্করণ)। কলকাতা: এনবিএ। পৃষ্ঠা ২৬৭।
Notes:
[1] N. Krupskaya, Reminiscences of Lenin, 1933, in the chapter “Last Months in Emigration”
[2] V.I. Lenin, The Draft Resolution of the Left Wing at Zimmerwald, 1915)
[3] V.I. Lenin, Lecture on the 1905 Revolution, January 1917
[4] Quotes cited in Leon Trotsky, The History of the Russian Revolution, in the chapter “The Bolsheviks and Lenin”
[5] Ibid
[6] V.I. Lenin, The First Stage of the First Revolution, March 7, 1917
[7] Leon Trotsky, The History of the Russian Revolution, in the chapter “The Bolsheviks and Lenin”
[8] N. Krupskaya, Reminiscences of Lenin, 1933, in the chapter “Last Months in Emigration”
[9] All quotes taken from V.I. Lenin, The Tasks of the Proletariat in the Present Revolution—The April Theses, 1917
[10] Quotes cited in Alexander Rabinowitch, Prelude to Revolution, Indiana University Press, pg. 40
[11] Cited in V.I. Lenin, Letters on Tactics, April 1917
[12] V.I. Lenin, Letters on Tactics, April 1917
[13] ibid
[14] ibid
[15] V.I. Lenin, The Task of the Proletariat in Our Revolution, April 1917
[16] ibid
[17] ibid
[18] Leon Trotsky, The Class, the Party and the Leadership, 1940
[19] ibid
[20] Leon Trotsky, Lenin, in the chapter “Before the October Revolution,” 1925
[21] From the minutes of the “Session of the Petersburg Committee of DLPR (Bolshevik), November 1, 1917,” published in Leon Trotsky, Stalin’s School of Falsification, 1937, in the chapter “The Lost Document”

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ