শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিকদের পানি ও স্যানিটেশন: বর্তমান বাস্তবতা ও করণীয় শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৫:৫৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৪, ২০২২

শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিকদের পানি ও স্যানিটেশন: বর্তমান বাস্তবতা ও করণীয় শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক | শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার), ১৪ মার্চ ২০২২ : শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিকদের পানি ও স্যানিটেশন: বর্তমান বাস্তবতা ও করণীয় শীর্ষক এক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১৪ মার্চ ২০২২) সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিতালী দত্ত।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা: সাফাতা মো. আশরাফ হোসেন (অনয়)-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো: সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী ও শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লার সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী।
প্রোমোটিং ওয়াশ ফর হার্ড টু রিচ কমিউনিটিস ইনক্লুডিং টি গার্ডেন ওয়ার্কার্স বাংলাদেশ প্রকল্পের মাধ্যমে চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য আইডিয়া ও ওয়াটারএইড কর্তুক আয়োজিত প্রকল্পটি শ্রীমঙ্গল উপজেলার রাজঘাট, কালিঘাট ও সাতগাঁও ইউনিয়নে বান্তবায়ন করছে।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই কর্মশালার মূল বিষয়ের উপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন আইডিয়া-ওয়াশ প্রকল্পের ব্যবস্থাপক পঙ্কজ ঘোষ দস্তিদার।
আইডিয়া-ওয়াশ প্রকল্পের প্রজেক্ট অফিসার মমতাহেনার উপস্থাপনায় স্বাগত বক্তব্য দেন সভার সভাপতি ডা: সাফাত মো: আশরাফ হোসেন।

মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ ছায়েদ আহমেদ, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি পঙ্কজ এ কন্দ, রাজঘাট ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মো: সেলিম আহমেদ, রাজঘাটের পঞ্চায়েত সেক্রেটারী অলিন তাতী, ম্যাক বাংলাদেশ-এর পিএম শাহ সায়িদ আহমেদ, হুগলীছড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক বাসন্তী রানী রায়।

কর্মশালার মূল বিষয়ের উপর উপস্থাপনায় চা শ্রমিকদের বর্তমান পানি ও স্যানিটেশনের সার্বিক অবস্থা তুলে ধরা হয়।
তিনি এসডিজি ৬ নং গোলের একটি সবার জন্য নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন ও হাইজিনের বিষয়টি অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পরিসংখ্যানের সাথে চা বাগানের তথ্য, চা বাগানের ওয়াশ সমস্যা, কি কি করনীয় এবং এ ক্ষেত্রে সকলের সহযোগিতা ও দায়িত্বের বিষয়টি তুলে ধরেন।
চা শ্রমিকরা প্রান্তিক, পিছিয়ে পড়া এক জনগোষ্ঠী। যারা উন্নয়নের স্রোতোধারায় এখনো পুরোপুরি সম্পৃক্ত হতে পারে নাই। সেই সকল মানুষের অধিকার ও ন্যায্যতার জন্য সকলের একযোগে কাজ করা উচিৎ। ১২০ টাকা দৈনিক মজুরীপ্রাপ্ত চা শ্রমিকরা চিরদিনই স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, শিক্ষা, দারিদ্রতা সবক্ষেত্রেই অধিকার থেকে বঞ্চিত। বাগান মালিক পক্ষের কঠোর নিয়মে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত খাটুনির পর তারা স্বাস্থ্যসম্মত পায়খান অথবা নিরাপদ পানি নিয়ে ভাবার সময় থাকে না। তাইতো যা আছে তাই দিয়েই দিন চলে যায়।

এছাড়াও কর্মশালার মুক্ত আলোচনায় চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নের বিশেষ করে পানিও স্যানিটেশনের উন্নয়নের বিষয়ে বাগান কর্তৃপক্ষের বিভিন্ন বাধা বিপত্তির ক্ষোভ ও নিন্দা জানান।